, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ অনলাইন সংস্করণ

দৌলতদিয়ায় পারাপারের অপেক্ষায় ৫ শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাক

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

দৌলতদিয়ায় পারাপারের অপেক্ষায় ৫ শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাক

দেশের ব্যস্ততম নৌরুট দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া। রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া প্রান্তে আজও দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা যানবাহনের দীর্ঘ সারি তৈরি হয়েছে। ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে অপেক্ষা করছে শত শত যানবাহন। অপেক্ষমাণ এসব যানবাহনের মধ্যে পণ্যবাহী ট্রাকের সংখ্যা বেশি। দীর্ঘ সময় খোলা আকাশের নিচে আটকা থাকায় চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে ট্রাকচালকদের।

ঘাট এলাকায় শত শত পণ্যবাহী ট্রাক নদী পারের অপেক্ষায় থাকলেও চাপ নেই যাত্রীবাহী দূরপাল্লার পরিবহন ও ব্যক্তিগত ছোট গাড়ির। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যাত্রীবাহী বাস ও ব্যক্তিগত ছোট গাড়ি নদী পার করার কারণে ঘাটে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে না যাত্রীদের। ঘাট এলাকাতে এসে কিছু সময় পরই ফেরিতে উঠে যাচ্ছে পরিবহন ও ছোট গাড়িগুলো।

শনিবার (০৯ অক্টোবর) সকালে সরেজমিনে দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় এ চিত্র দেখা যায়। ফেরিঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের বাংলাদেশ হ্যাচারিজ পর্যন্ত তিন কিলোমিটার এলাকায় প্রায় তিন শতাধিক যানবাহন ফেরি পারের অপেক্ষায় রয়েছে।অপেক্ষমাণ এসব যানবাহনের মধ্যে পণ্যবাহী ট্রাকের সংখ্যা বেশি।

অন্যদিকে ঘাট এলাকায় যানজট কমাতে পুলিশ ফেরিঘাট থেকে সাড়ে ১৩ কিলোমিটার পেছনে গোয়ালন্দমোড় থেকে রাজবাড়ী-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কের কল্যাণপুর বাজার পর্যন্ত দুই কিলোমিটার এলাকায় দুই শতাধিক অপচনশীল পণ্যবাহী ট্রাককে আটকে রেখেছে।সিরিয়ালে আটকে থাকা এসব ট্রাকগুলো ২৪ ঘণ্টা অপেক্ষা করেও ফেরির নাগাল পাচ্ছে না। দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে ট্রাকচালকদের।

ঘাট সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বাংলাবাজার-শিমুলিয়া রুটের অতিরিক্ত গাড়ির চাপ পড়েছে দৌলতদিয়া ঘাটে। এ ছাড়া পদ্মায় ড্রেজিং কাজ চলমান থাকায় ফেরিগুলোকেও অনেকটা পথ ঘুরে তারপর যেতে হচ্ছে। এতে সময় বেশি লাগছে। তাছাড়া দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে রো রো ফেরির জন্য পর্যাপ্ত পন্টুন না থাকায় একটি ফেরি না ছাড়া পর্যন্ত অপর একটি ফেরিকে ঘাটের কাছে এসে ঝুলে থাকতে হচ্ছে। এসব কারণে দৌলতদিয়া ঘাটে যানবাহনগুলোর দীর্ঘ সারি তৈরি হচ্ছে।

বেনাপোল থেকে সার নিয়ে এসেছেন ট্রাকের চালক আলাউদ্দিন শেখ। তিনি বলেন, গোয়ালন্দ মোড়ে এসে ১৬ ঘণ্টা আটকে ছিলাম।আশপাশে খাবার হোটেল নেই, টয়লেট নেই। দীর্ঘ সময় আটকে থেকে অনেক কষ্ট হয়েছে। আজ ভোরে পুলিশ গোয়ালন্দ মোড় থেকে ছেড়ে দিলে আবার ওয়েট স্কেলে এসে যানজটে পড়েছি। ঘাট কখন পার হতে পারব তা ঠিকভাবে বলতে পারছি না।

আরেক ট্রাকচালক শফিউল্লাহ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমাগের এই দুঃখ-কষ্ট বোঝার কেউ নেই। সঠিক সময়ে মাল ডেলিভারি না দিতে পারলে মহাজন তো আমাগেরে ধরে। বেতনের টাকা কাইটা নেই। দীর্ঘ সময় ধরে সিরিয়ালে আটকে থাকতেছি। এইটা কী আমাগের দোষ?

দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের কাছে আটকে থাকা ট্রাকচালক সুমন শেখ জানান, নদী পারের জন্য তাদের ২৪ ঘণ্টার বেশি সময় ফাঁকা সড়কে অবস্থান করতে হচ্ছে। বেশি বিপাকে পড়েছেন গোয়ালন্দ মোড়ে অপেক্ষায় থাকাতে। কারণ এ সড়কটি পুরোই ফাঁকা। নেই কোনো খাবার হোটেল, নেই টয়লেটের ব্যবস্থাও।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া ঘাট শাখার ব্যবস্থাপক শিহাব উদ্দিন ঢাকা পোস্টকে বলেন, এই রুটে আজ ১৯টি ফেরি চলাচল করছে। চারটি ঘাট চালু রয়েছে। তবে বড় রো রো ফেরির জন্য ঘাট রয়েছে মাত্র দুটি। রো রো ফেরির জন্য ঘাট সংখ্যা বৃদ্ধি করলে ঘাটে গাড়ির সিরিয়ালের সংখ্যাও কমে যাবে।

  • সর্বশেষ - সারাদেশ