, ১৪ মাঘ ১৪২৮ অনলাইন সংস্করণ

নদীভাঙনে সব শেষ, নৌকায় সন্তান জন্ম দিলেন মিনারা

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

নদীভাঙনে সব শেষ, নৌকায় সন্তান জন্ম দিলেন মিনারা

খোলপেটুয়া নদীর বাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছিল গোটা এলাকা। সেই ভাঙনের কবলে পড়ে ঘরবাড়ি বিলীন হয়ে যায় ইয়াকুব আলীর। নিরুপায় হয়ে সাত সদস্যের পরিবার নিয়ে বসবাস করছেন মাছ ধরা নৌকায়। সেখানেই সন্তান জন্ম দিয়েছেন ইয়াকুবের স্ত্রী মিনারা খাতুন।

গত মঙ্গলবার রাতে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার পদ্মপুকুর ইউনিয়নের বন্যতলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। যোগাযোগব্যবস্থা কঠিন হওয়ায় স্থানীয় ধাইয়ের মাধ্যমে ডেলিভারি সম্পাদন করতে হয়েছে। তবে মা ও নবজাতক এখন সুস্থ আছে।

মৎস্যজীবী ইয়াকুব আলী বলেন, আমি নদীতে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করি। বন্যতলা এলাকায় বাঁধ ভেঙে সব নদীতে চলে গেছে। ১৫ দিন আগে ঘরবাড়িও চলে যায় নদীগর্ভে। তারপর সাত সদস্যের পরিবার নিয়ে মাছ ধরা নৌকাটির ওপর বসবাস করছি। স্ত্রী মিনারা খাতুন গর্ভবতী ছিল। যাতায়াতব্যবস্থা না থাকায় কোনো চিকিৎসকের কাছে নিতে পারিনি। মঙ্গলবার (২ নভেম্বর) রাতে ছেলেসন্তানের জন্ম হয়েছে। মা-ছেলে এখন দুজনই সুস্থ রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, নদীর বেড়িবাঁধ ভেঙে বাস্তুচ্যুত হয়ে গেছি। যারা আর্থিকভাবে সচ্ছল, তারা অন্যত্র চলে যাচ্ছে। আমাদের যাওয়ার মতো জায়গা নেই। কী আর করব! তাই এভাবেই থাকতে হচ্ছে।

প্রতাপনগর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান জাকির হোসেন বলেন, নৌকার মধ্যে সন্তানের জন্ম হচ্ছে। উপলব্ধি করুন মানুষ কতটা কষ্টে রয়েছে। বন্যতলা বেড়িবাঁধ ভেঙে পুরো এলাকা প্লাবিত। বন্যতলার ওই এলাকাটি প্রতাপনগর ইউনিয়ন ও শ্যামনগর উপজেলার পদ্মপুকুর ইউনিয়নের সীমান্ত এলাকা।

লোকালয় দিয়েই জোয়ার-ভাটা খেলা করছে। বসতভিটা হারিয়েছে হাজারো মানুষ। বাধ্য হয়েই কেউ বাঁধের ওপর কেউবা নৌকায় বসবাস করছে বলে জানান তিনি।

  • সর্বশেষ - সারাদেশ