, ১২ আষাঢ় ১৪২৯ অনলাইন সংস্করণ

ঈদের আগে ব্যাংকে উপচেপড়া ভিড়

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

ঈদের আগে ব্যাংকে উপচেপড়া ভিড়

পবিত্র রমজান মাসের দ্বিতীয় দশকের সপ্তম দিন আজ। দরজায় কড়া নাড়ছে আসন্ন ঈদুল ফিতর। ঈদকে ঘিরে সাধারণ মানুষের প্রস্তুতি এবার একটু বেশি। গত দুই বছর বিশ্বব্যাপী করোনা প্রাদুর্ভাবের পর এবারের ঈদকে ঘিরে আয়োজনের কমতি নেই কোথাও। এরই মধ্যে মার্কেটগুলোতে জমে ওঠেছে কেনাকাটা। আর এ কেনাকাটাকে কেন্দ্র করে ব্যাংকগুলোতে গ্রাহকদের উপচেপড়া ভিড় দেখা যাচ্ছে। রাজধানীর মতিঝিল ও দিলকুশা, দৈনিক বাংলা, পল্টন, শান্তিনগর, মালিবাগ, খিলগাঁওসহ বিভিন্ন এলাকার ব্যাংকের শাখাগুলো ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

অন্যদিকে, প্রতিবছরই ঈদের আগে ব্যাংকগুলোতে নগদ অর্থের চাহিদা বেড়ে যায়। এতে বাড়তি চাহিদার যোগান দিতে এক ব্যাংক অন্য ব্যাংকের কাছ থেকে টাকা ধার করে থাকে। তবে, ঈদের আগে ব্যাংকগুলোতে লেনদেনের পরিমাণ বাড়লেও নগদ অর্থের টান পড়েনি। এছাড়া ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ২৩ হাজার কোটি টাকার নতুন নোট বাজারে ছাড়বে বাংলাদেশ ব্যাংক। আগামী ২০ এপ্রিল থেকে ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত ৩২টি ব্যাংকের মাধ্যমে নতুন নোট সংগ্রহ করতে পারবেন গ্রাহকরা।

মঙ্গলবার (১৯ এপ্রিল) সকাল থেকে এসব এলাকায় ব্যাংকের শাখাগুলোতে টাকা জমা ও উত্তোলন কাউন্টারে লম্বা লাইন দেখা গেছে। সকাল থেকেই গ্রাহকের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। গ্রাহককে টাকা জমার চেয়ে উত্তোলনই করতে বেশি দেখা গেছে। গ্রাহকের প্রয়োজনীয় লেনদেনের পাশাপাশি নতুন টাকার জন্যও ভিড় করছেন কাউন্টারগুলোতে। সবাইকে সুশৃঙ্খলভাবে নিজ নিজ লেনদেন শেষ করতে দেখা যায়।

মতিঝিলে ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের গ্রাহক সাইফুল্লার সঙ্গে কথা হয় জাগো নিউজের। তিনি বলেন, ঈদ কাছাকাছি চলে এসেছে। বাচ্চাদের পাশাপাশি গ্রামে থাকা বাবা-মার জন্য পোশাক কিনেত হবে। তাই টাকা তুলতে এসেছি। তবে, ব্যাংকে ভিড় (গ্রাহক উপস্থিতি বেশি) থাকলেও লেনদেনে কোনো হুড়োহুড়ি নেই, এটা ভালো দিক।

সোনালী ব্যাংকের গ্রাহক আবেদিন বলেন, রোজার বেশি অর্ধেক শেষ হলো। আমার ছোট ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের ১০-১২ জন কর্মরত আছেন। তাদের বেতন-বোনাস দিতে হবে। এজন্য টাকা তুলতে এসেছি। একটু অপেক্ষা করতে হচ্ছে আজ অনেকেই এসেছেন এ জন্য।

সোনালী ব্যাংকের মতিঝিল ব্রাঞ্চের এক কর্মকর্তা বলেন, প্রতিবছরই দুই ঈদের আগে গ্রাহকের ভিড় থাকে ব্যাংকে। অনেকেই কেনাকাটা বা প্রতিষ্ঠানের বেতন-বোনাস দেওয়ার জন্য টাকা উত্তোলন করতে আসেন। এবারও গ্রাহকের উপস্থিতি বেড়েছে। আমাদের প্রতিটি ক্যাশ কাউন্টারেই গ্রাহকের ভিড় রয়েছে। অনেকে সঞ্চয়পত্রের মুনাফা তুলছেন কেউবা ডিপোজিট করছেন। আমরা গ্রাহককে সর্বোচ্চ সেবা দেওয়ার চেষ্টা করছি। তবে গত সপ্তাহে ভিড় আরও বেশি ছিল, বিশেষ করে বৈশাখের আগ মুহূর্তে।

অন্যদিকে, বছরের সবসময়ই নতুন নোট ছাপানো হয়। তবে ঈদের আগে নতুন নোটের চাহিদা বেশি থাকায় ২৩ হাজার কোটি টাকার নতুন নোট বাজারে আসছে। আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ২০ এপ্রিল থেকে ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত ৩২টি ব্যাংকের মাধ্যমে নতুন নোট সংগ্রহ করতে পারবেন গ্রাহকরা।

ব্যাংকের যেসব শাখায় মিলবে নতুন নোট
এনসিসি ব্যাংক যাত্রাবাড়ী শাখা, জনতা ব্যাংকের আব্দুল গণি রোড করপোরেট শাখা, অগ্রণী ব্যাংকের জাতীয় প্রেস ক্লাব করপোরেট শাখা, গ্লোবাল ইসলামী ব্যাংকের মিরপুর শাখা, সাউথইস্ট ব্যাংকের কারওয়ান বাজার শাখা, সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের বসুন্ধরা সিটি (পান্থপথ) শাখা, উত্তরা ব্যাংকের চকবাজার শাখা, সোনালী ব্যাংকের রমনা করপোরেট শাখা, ঢাকা ব্যাংকের উত্তরা শাখা, আইএফআইসি ব্যাংকের গুলশান শাখা, ন্যাশনাল ব্যাংকের মহাখালী শাখা, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের মোহাম্মদপুর শাখা, জনতা ব্যাংকের রাজারবাগ শাখা, পূবালী ব্যাংকের সদরঘাট শাখা, সাউথইস্ট ব্যাংকের কাকরাইল শাখা, ওয়ান ব্যাংকের বাসাবো শাখা, ব্র্যাক ব্যাংকের শ্যামলী শাখা।

এছাড়া দক্ষিণখানের ডাচ-বাংলা ব্যাংকের এসএমই অ্যান্ড এগ্রিকালচার শাখা, ব্যাংক এশিয়ার বনানী-১১ শাখা, ব্যাংক এশিয়ার ধানমন্ডি শাখা, দি সিটি ব্যাংকের বেগম রোকেয়া সরণী শাখা, আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকের নন্দীপাড়া শাখা, প্রাইম ব্যাংকের এ্যালিফেন্ট রোড শাখা, সোনালী ব্যাংকের জাতীয় সংসদ ভবন শাখা, এবি ব্যাংকের প্রগতি সরণী শাখা, মার্কেন্টাইল ব্যাংকের নারায়ণগঞ্জ শাখা, এক্সিম ব্যাংকের শিমরাইল শাখা, ইসলামী ব্যাংকের গাজীপুর চৌরাস্তা শাখা, ইউসিবিএল’র গাজীপুর চৌরাস্তা শাখা, উত্তরা ব্যাংকের সাভার শাখা, মিউচ্যুয়াল ট্রাষ্ট ব্যাংকের সাভার শাখা এবং ট্রাষ্ট ব্যাংকের কেরানীগঞ্জ শাখা।

  • সর্বশেষ - অর্থ-বাণিজ্য