, ১২ আষাঢ় ১৪২৯ অনলাইন সংস্করণ

লাইনে দাঁড়িয়েও অনলাইনে টিকিট কাটার চেষ্টা

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

লাইনে দাঁড়িয়েও অনলাইনে টিকিট কাটার চেষ্টা

ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে শনিবার (২৩ এপ্রিল) সকালে। কাঙ্ক্ষিত টিকিট পেতে রাত থেকেই অনেকে কাউন্টারের সামনে লাইনে দাঁড়িয়েছেন। তবে কাউন্টারের পাশাপাশি রেলওয়ে অনলাইনেও ৫০ শতাংশ টিকিট রেখেছে। তাই 'সুযোগ' হাতছাড়া না করতে লাইনে দাঁড়িয়েও অনলাইনে টিকিট কাটকে ঢুঁ মারছেন অনেকে।

শনিবার (২৩ এপ্রিল) সকাল ৮টার কিছু সময় পর কমলাপুর রেলস্টেশনে টিকিট বিক্রি শুরু হয়। এ সময় অনেকের হাতে থাকা মোবাইল স্ক্রিনে রেলওয়ের ই-টিকিট ওয়েবসাইট ব্রাউজ করতে দেখা যায়।

কমলাপুর ছাড়াও রাজধানীর আরও ৪টি স্টেশনে ভাগ করে দেওয়া হয়েছে টিকিট। শুধুমাত্র কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে টিকিট কেনার চাপ কমাতে বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে রেলওয়ে।

রাজশাহীগামী ধুমকেতু ট্রেনের টিকিট কাউন্টারের লাইনের সিরিয়ালে ৯৩ জনের পেছনে অপেক্ষা করছিলেন মনছুর আহমেদ নামের। বেসরকারি চাকরিজীবী এই ব্যক্তি বলেন, সেহেরির পরেই এসে লাইনে দাঁড়িয়েছি। যেহেতু পরিবারের সদস্য ও শিশুদের নিয়ে রাজশাহী যাব, তাই আমার এসি টিকিট প্রয়োজন। যত জনের পেছনে আমার সিরিয়াল সে অনুযায়ী এসি টিকিট পাওয়ার আর কোনো সম্ভাবনা নেই। তাই ৮টা বাজার পর থেকেই লাইনে দাঁড়ানো অবস্থাতেই অনলাইনে টিকিট কাটার চেষ্টা করছি মোবাইলে।

dhakapost

রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের টিকিটের লাইনে দাঁড়ানো তোফাজ্জল হোসেনও মোবাইলে চেষ্টা করে যাচ্ছেন অনলাইনে টিকিট কাটার। আলাপে তিনি বলেন, লাইনে দাঁড়ালেও এসি টিকিট পাওয়ার আশায় অনলাইনে ননস্টপ চেষ্টা করে যাচ্ছি। তবে সার্ভার ডাউনের কারণে ওয়েবসাইটে ঢুকতে পারছি না। যদি কোনোভাবে অনলাইনে টিকিট পেয়ে যাই তখন টিকিটের লাইন ছেড়ে চলে যাব। 

এখানে বেশিরভাগ লোকই লাইনে দাঁড়ানোর পরও ভালো টিকিটের প্রত্যাশায় অনলাইনে চেষ্টা করছেন। একটু খেয়াল করলে দেখতে পাবেন সবার হাতে মোবাইল, সবাই চেষ্টা করছেন, বলেন এ টিকিটপ্রত্যাশী।

কাউন্টার থেকে টিকিট বিক্রির দায়িত্বে থাকা রাকিবুল ইসলাম বলেন, যাত্রীরা যারাই আসছেন টিকিট থাকার পরিপ্রেক্ষিতে সবাইকে  দেওয়া হবে। অনেকে লাইনে দাঁড়িয়েও অনলাইনে চেষ্টা করছেন। যে কারণে সার্ভারে সমস্যা হচ্ছে। তাই যাত্রীরা অনলাইনে ঢুকে টিকিট কাটতে পারছেন না।

dhakapost

বাংলাদেশ রেলওয়ের তথ্য অনুযায়ী, ২৭ এপ্রিলের টিকিট দেওয়া হচ্ছে আজ (২৩ এপ্রিল)। একইভাবে ২৮ এপ্রিলের টিকিট পাওয়া যাবে ২৪ এপ্রিল (রোববার), ২৯ এপ্রিলের টিকিট ২৫ এপ্রিল (সোমবার), ৩০ এপ্রিলের টিকিট ২৬ এপ্রিল (মঙ্গলবার) এবং ১ মের টিকিট ২৭ এপ্রিল (বুধবার) বিক্রি করবে বাংলাদেশ রেলওয়ে।

এবার ‘টিকিট যার, ভ্রমণ তার’ এই স্লোগান বাস্তবায়নে যাত্রীদের এনআইডি-জন্ম সনদ ফটোকপি কাউন্টারে প্রদর্শন করে টিকিট ক্রয় করতে হবে। এনআইডি ছাড়া অন্য কোনো পরিচয়পত্র দিয়ে ট্রেনের টিকিট কাটা যাবে না।

বাংলাদেশ রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, আগামী ২৫ এপ্রিল থেকে ঈদের আগের দিন পর্যন্ত কোনো আন্তঃনগর ট্রেনের সাপ্তাহিক বন্ধ থাকবে না এবং ঈদের পরে যথারীতি তা কার্যকর করা হবে। সাপ্তাহিক বন্ধ বাতিলের ফলে অতিরিক্ত ৯২টি আন্তঃনগর ট্রেন বিশেষ ট্রিপে পরিচালিত হবে।

  • সর্বশেষ - আলোচিত খবর