, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ অনলাইন সংস্করণ

আসমা সুলতানার চারটি কবিতা

  সাহিত্য ডেস্ক

  প্রকাশ : 

আসমা সুলতানার চারটি কবিতা

কোথাও কি নেই আমি

বর্ষার মেঘ, শরতের নীলিমা, হেমন্তের কুহকী সকাল,
কোথাও কি নেই আমি?
চৈতির দুরন্ত হাওয়ায়, খুঁনসুটি ছেলেবেলায়, নির্ঘুম দুপুরের একাকিত্বে,
কোথাও কি নেই আমি?
পত্রহীন মৃত বৃক্ষ যদি সাজে তৃণাদৃত সবুজ গালিচায়,
সেখানেও কি নেই আমি!
সর্ষে ক্ষেতের সীমানায় রাত্রির গন্ধে প্রখর রৌদ্রে,
কোথাও কি নেই আমি?
সময়ের সমুদ্র পাড়ে, শাদা পাখির ডানায়, জলকাদায় বিস্তীর্ণ প্রান্তরে
কোথাও কি নেই আমি?
চশমার কাচ, খোলা জানালায়, হুডখোলা রিকশার টুংটাং আওয়াজে
কোথাও নেই আমি।
নীল জল অভিমানে, না খোলা চিঠির ভাঁজে কোথাও কি ছিলাম এই আমি?

****

অঘোষিত ঝড়

দীঘির বুকে জলের বাসর
অনেক তৃষ্ণার্ত আমি কাতরাই সাঁতার
জলাঙ্গীনি জলের অতলে,
ক্ষরিত হৃদয় যদি ভিজে যায় অঘোষিত ঝড়ে,
কাটাবো এ দুপুর আমি জলের মগ্নতায়
অজস্র পাতার আড়ালে, দুপুরগুলো লুটিয়ে যায়
ক্ষমা করো প্রভু জন্ম-জন্মান্তরের তৃষ্ণার্ত হৃদয়
আমার কোন রোদের ঝরনায় মৌনতা হারায়।

****

হঠাৎ ঝড়ে

যদি ভেসে যাই অজানা কোন ঝড়ে
নিঃসর্গের প্লাবনে সহসা বন্দি হই কারো গাঢ় আলিঙ্গনে
অথবা ঘূর্ণি বাতাসে ফিরে আসি প্রিয় আলিঙ্গনে
সবকিছু ধ্বংস হোক এই প্রিয়মুখ ছেড়ে কোথাও যাব না
যদি এই নিষিদ্ধ শহরে পূর্ণিমা আসে একদিন
অকস্মাৎ ভেঙে দেয় কঠিন প্রাচীর
তোমার হাত ছুঁয়ে আমি নেব কঠিন শপথ
কেন বৃথা যাবে এইসব দিনরাত্রি
ভেঙে দিতে চাই ওই পাহাড়ের নীরবতা
কালপুরুষের মৌনতা অরণ্যে ঘুম

****

আলোহীন ভোর

ভোরের অন্ধকারে রোদের যেমন আগমনকাল
পুরুষের আগমনে অরণ্যের ঘুম ভাঙে যেমন
দিকশূন্যহীন বারবার তার কাছে হেরে যাচ্ছি
দূরের ধুলোর পথ ছেড়ে মানুষের পৃথিবীতে সম্পর্কের ঋণে জড়াই
সেখানে নেই প্রীতি, অনিঃশেষ দুঃখের রাগিণী বাজে
ডুবে যায় গৌরি দ্বীপশিখা
তবুও কিছু থেকে যায় থাকে কিছু অনুভব আগন্তুক কষ্টে
সে আমার দেখার ভুল নাকি
ভূমিষ্টের অপেক্ষায় জেগে থাকা
জলন্ত হলাহল।

  • সর্বশেষ - সাহিত্য