, ১২ আষাঢ় ১৪২৯ অনলাইন সংস্করণ

বাংলাবাজার ঘাটে যাত্রীচাপ, বাড়তি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

বাংলাবাজার ঘাটে যাত্রীচাপ, বাড়তি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ

ঈদ শেষে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুট দিয়ে কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছেন দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষ। শুক্রবার (৬ মে) বেলা বাড়ার সঙ্গে বাংলাবাজার ঘাটে ঢাকামুখী যাত্রীর চাপ বেড়েছে। এ সুযোগে যানবাহনে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ উঠেছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, শুক্রবার সকাল থেকেই লোকাল বাস, মিনি ট্রাক, মাইক্রো, থ্রি-হুইলার ও মোটরসাইকেলে বাংলাবাজার ঘাটে আসছেন যাত্রীরা। পরে ফেরি, লঞ্চ ও স্পিডবোটে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছেন। ঘাটে যাত্রীর চাপ বেশি থাকায় লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী পারাপার করতে দেখা গেছে। এছাড়া ব্যক্তিগত গাড়ি ও মোটরসাইকেল পাড় হচ্ছে ফেরিতে। বাংলাবাজার ৪ নম্বর ফেরি ঘাটে মোটরসাইকেলের বেশ চাপ রয়েছে।

Banglabazar-1.jpg

ঈদ শেষে পরিবার-পরিজন নিয়ে ঢাকায় ফিরছেন দক্ষিণাঞ্চলের যাত্রীরা। এই রুটে ছয়টি ফেরি, ৮৬টি লঞ্চ ও শতাধিক স্পিডবোট চলাচল করছে। ঘাট এলাকায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ, র্যাবসহ পর্যাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন।

নড়াইল থেকে বাংলাবাজার ঘাটে আসা যাত্রী সাজ্জাদ করিম বলেন, স্পিডবোটে ১৫০ টাকার ভাড়া ১৮০ থেকে দুইশো পর্যন্ত নেওয়া হচ্ছে।

বরিশালের যাত্রী রিফাত হোসেন জানান, বরিশাল থেকে বাংলাবাজার ঘাটের ভাড়া দুইশো টাকা। কিন্তু ঘাটে আসতে সাড়ে তিনশো থেকে চারশো পর্যন্ত ভাড়া আদায় করছে।

Banglabazar-1.jpg

খুলনা থেকে আসা যাত্রী মো. লুৎফর রহমান বলেন, পরিবারের সঙ্গে ঈদ শেষে ঢাকায় কর্মস্থলে ফিরে যাচ্ছি। ঘাটে ফেরি সংকট তাই দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হচ্ছে। ঘাট এলাকায় কড়া রোদে দুর্ভোগে পড়েছি।

বিআইডব্লিউটিসির বাংলাবাজার ঘাট ম্যানেজার মো. সালাউদ্দিন আহমেদ বলেন, ঈদের ছুটি শেষে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে ঢাকাগামী যাত্রীদের চাপ বেড়েছে। সকাল থেকেই যাত্রীরা বাংলাবাজার ঘাটে এসে জড়ো হচ্ছেন। শিমুলিয়া-বাংলাবাজার-মাঝিকান্দি রুটে মোট ১০টি ফেরি দিয়ে পারাপার করা হচ্ছে।

  • সর্বশেষ - সারাদেশ