, ১৬ আষাঢ় ১৪২৯ অনলাইন সংস্করণ

রাতের খাবার খেয়ে পরিবারের ১১ জন হাসপাতালে

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

রাতের খাবার খেয়ে পরিবারের ১১ জন হাসপাতালে

বরগুনায় বাড়িতে ঢুকে খাবারে চেতনানাশক স্প্রে দেওয়া হয়েছে। এ খাবার খেয়ে একই পরিবারের নারী-শিশুসহ ১১ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।

শুক্রবার (৬ মে) রাত ১২টার দিকে বরগুনার আমতলী উপজেলার উত্তর খেকুয়ানী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী ব্যক্তিরা হলেন একই এলাকার আয়জদ্দিন খলিফা (৭০) ও তার স্ত্রী ফাতেমা বেগম (৬০), আলতাফ হোসেন খলিফা (৫৫) তার স্ত্রী শেফালী বেগম (৫০) সহ তাদের মেয়ে-জামাতা ও নাতি-নাতনিরা।

জানা যায়, শুক্রবার (৬ মে) রাতে অয়জউদ্দিহ খলিফার চাচাত ভাই ও প্রতিবেশী আবুল বাশার ঘরের দরজা খোলা দেখে স্থানীয় ফজলু ও আলতাফকে নিয়ে ঘরের ভেতরে প্রবেশ করে। তারা দেখতে পান একেকজন একেক জায়গায় অচেতন অবস্থায় পড়ে আছে। এরপর অচেতন অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। হাসপাতালের তত্য অনুযায়ী এখন পর্যন্ত কারও চেতনা ফেরেনি।

আয়জদ্দিন খলিফার ছেলে খলিল খলিফা বলেন, কাল রাতে আমি বাড়িতে ছিলাম না। রাতে ঘটনা শুনে আমি স্থানীয় প্রতিবেশীদের সহযোগিতায় আমার বৃদ্ধ বাবা-মাসহ অন্যদের অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য আমতলী হাসপাতালে এনে ভর্তি করেছি। কারা এ কাণ্ড ঘটিয়েছে, তা বলতে পারছি না। তবে দুর্বৃত্তরা চুরির উদ্দেশ্যে এমনটা করে থাকতে পারে বলে আমাদের ধারণা।

আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সুমন বিশ্বাস বলেন, চেতনানাশক স্প্রে করা খাবার খাইয়ে পরিবারের সবাইকে অচেতন করা হয়েছে। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করে যথাযথ চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। চেতনানাশক ওষুধের কার্যকারিতা কমে এলেই তাদের জ্ঞান ফিরে আসবে।

আমতলী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রণজিৎ কুমার সরকার বলেন, ঘটনা শুনে হাসপাতালে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তাদের জ্ঞান ফিরলে বিস্তারিত যেনে অভিযোগ অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

  • সর্বশেষ - সারাদেশ