, ১ ভাদ্র ১৪২৯ অনলাইন সংস্করণ

অগ্নিপথ : তৃতীয় দিনেও অগ্নিগর্ভ ভারত

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

  প্রকাশ : 

অগ্নিপথ : তৃতীয় দিনেও অগ্নিগর্ভ ভারত

অগ্নিপথ নিয়ে বিক্ষোভ তৃতীয় দিনে গড়িয়েছে ভারত। সবচেয়ে বেশি সহিংসতা হয়েছে বিহার রাজ্যে। সহিংসতার কারণ ভারতজুড়ে ৩৫০টি ট্রেনের যাত্রা বাতিল করা হয়েছে।

শনিবার ছাত্র সংগঠনের ডাকা ভারত বন্‍‍ধে অশান্ত হয়ে ওঠে বিহারের জেহানাবাদ। রেগানা স্টেশনে শূন্যে গুলি চালিয়ে বিক্ষোভকারীরা কিছু সময়ের জন্য দখল করে স্টেশন। পুড়িয়ে দেওয়া হয় জিআরপি থানার সব গাড়ি, আক্রমণ চলে আরপিএফ ব্যারাকেও। গুলি চালিয়ে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করেছে পুলিশ। সমস্তিপুরে স্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকা জম্মু তাওয়াই গুয়াহাটি এক্সপ্রেসে আগুন লাগিয়ে দেয় বিক্ষোভকারীরা। বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে স্থানীয় বাসিন্দারাও হামলায় যোগ দেন। রেলের ছয়টি বগি আগুনে পুড়ে গেছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। পরিস্থিতি সামাল দিতে বিহারের ১২টি জেলায় ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। 

তামিলনাড়ুর চেন্নাইয়ে ওয়ার মেমোরিয়ালের কাছে যুব সম্প্রদায় বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে। পরে পুলিশ গিয়ে বিক্ষোভকারীদের হঠিয়ে দেয়। 

কেরালায় সেনাবাহিনীতে নিয়োগের জন্য অবিলম্বে পরীক্ষার দাবিতে শত শত যুবক তিরুবনন্তপুরম ও কোঝিকোড়ে বিশাল প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে। কর্ণাটকের ধারওয়াদে মিছিল বের করার চেষ্টা করলে পুলিশ বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে লাঠিচার্জ করে।

অগ্নিপথ বিক্ষোভের আঁচ শনিবার পশ্চিমবঙ্গেও লেগেছে। শিয়ালদা মেন শাখায় ব্যারাকপুর স্টেশনে অভিনব প্রতিবাদ করেছে বিক্ষোভকারীরা। তার অবরোধ করে রেললাইনে ডন বৈঠক দেয়। অবরোধের জেরে আপ ও ডাউন লাইনে আটকে পড়ে একাধিক ট্রেন। চল্লিশ মিনিট পর রেল পুলিশ গিয়ে অবরোধকারীদের হঠিয়ে দেয়। 

প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার অগ্নিপথ প্রকল্পের ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। ওই প্রকল্পে ১৭-২১ বছরের তরুণ-তরুণীরা চার বছরের জন্য মাসিক ৩০-৪৫ হাজার রুপি চুক্তির ভিত্তিতে সশস্ত্র বাহিনীর তিন শাখায় যোগ দিতে পারবেন। তাদের বলা হবে ‘অগ্নিবীর’। সেনায় শূন্যপদ ও যোগ্যতার ভিত্তিতে চতুর্থ বছরের শেষে সেই ব্যাচের সর্বাধিক ২৫ শতাংশ অগ্নিবীরকে বাহিনীকে স্থায়ী করা হবে। বাকিদের ১১-১২ লাখ রুপি হাতে দিয়ে পাঠানো হবে অবসরে। তাদের থাকবে না কোনও পেনশন।

অগ্নিপথ প্রকল্পের বিরুদ্ধে বুধবার থেকেই ভারতের বিভিন্ন স্থানে ব্যাপক বিক্ষোভ শুরু হয়। বিক্ষোভে বিহারে সবচেয়ে বেশি সহিংসতা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার বিহারের উপমুখ্যমন্ত্রী রেণু দেবী এবং বিহার বিজেপির সভাপতি ও পশ্চিম চম্পারন সাংসদ সঞ্জয় জয়সওয়ালের বাড়িতে হামলা করে বিক্ষোভকারীরা।

  • সর্বশেষ - আন্তর্জাতিক