, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯ অনলাইন সংস্করণ

‘পাড়া-মহল্লায় আ’লীগকে আরও শক্তিশালী করতে হবে’

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

‘পাড়া-মহল্লায় আ’লীগকে আরও শক্তিশালী করতে হবে’

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে সব স্তরে আওয়ামী লীগকে আরও শক্তিশালী করতে হবে বলে জানিয়েছেন দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান।

তিনি বলেছেন, সামনে জাতীয় নির্বাচন। নির্বাচন কারও জন্য থেমে থাকবে না। সঠিক সময়েই নির্বাচন হবে। এ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনাকে আবারও প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত করতে হবে। এজন্য পাড়া-মহল্লা পর্যায়ে আওয়ামী লীগকে সাংগঠনিকভাবে আরও শক্তিশালী করতে হবে। আওয়ামী লীগ শক্তিশালী ও ঐক্যবদ্ধ হলে নৌকার বিজয় নিশ্চিত।

মঙ্গলবার (২১ জুন) ঢাকা মহানগর উত্তরের আওতাধীন ভাষানটেক থানার অন্তর্গত ৯৫ নং ওয়ার্ড ও ক্যান্টনমেন্ট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আব্দুর রহমান বলেন, ২০১৪ সালে খালেদা জিয়া বলেছিলেন, ‘সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত ঘরে ফিরে যাবো না’। কিন্তু সেদিন তিনি লজ্জা-শরমের মাথা খেয়ে ঘরে ফিরেছিলেন। সরকারের পতন ঘটাতে পারেননি। খালেদার নেতৃত্বে বিএনপি তখন আগুন-সন্ত্রাস করেছে। বাসে আগুন দিয়ে মানুষ হত্যা করেছে। নিরীহ মানুষের গায়ে পেট্রল বোমা মেরে পুড়িয়ে দিয়েছে। তাদের আন্দোলন মানেই আগুন-সন্ত্রাস।

বিএনপির নেতা কে, কার নেতৃত্বে বিএনপি নির্বাচনে আসবে- এমন প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া এতিমের অর্থ আত্মসাতের দায়ে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। তারেক জিয়া দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি। যে দলের নেতারই ঠিক নেই, সেই দল নির্বাচনে আসবে কীভাবে? এ অবস্থায় বিএনপি নির্বাচনে গেলে দেশের জনগণ তাদের পক্ষ নেবে না। আমরা বিশ্বাস করি, আগামী নির্বাচনে বাংলার মানুষ বঙ্গবন্ধুকন্যাকে ম্যান্ডেট দেবেন এবং তিনি আবারও প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত হবেন।

২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের অন্যায়, অবিচার ও নির্যাতনের কথা তুলে ধরে আব্দুর রহমান বলেন, দেশের মানুষ ভুলে যায়নি কিভাবে ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত নির্যাতন করা হয়েছে। সেইসব দিন আমরা আর দেখতে চাই না। আমরা চাই শেখ হাসিনাকে বারবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত করতে। কারণ, শেখ হাসিনা নির্বাচিত হলে দেশের উন্নয়ন হয়। মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়। নিজ অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ হয়।

তিনি বলেন, পদ্মা সেতু দৃশ্যমান হওয়ায় একশ্রেণির মানুষের বুক জ্বালা-পোড়া শুরু হয়েছে। তাদের কষ্টে বুক ফেটে যাচ্ছে। তারা বাংলাদেশের উন্নয়নে বিশ্বাস করে না। বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না। পাকিস্তানের কথা শুনলে তাদের আনন্দে বুক ভরে যায়। বাংলাদেশের উন্নয়ন-অগ্রগতির কথা শুনলে ওদের মন খারাপ হয়ে যায়। এরা ষড়যন্ত্র করছে। এদের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

ভাষানটেক থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার মো. গিয়াস উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মো. আজমত দেওয়ানের সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য রাখেন- আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান, মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ মো. বজলুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি প্রমুখ।

  • সর্বশেষ - রাজনীতি