, ২১ আশ্বিন ১৪২৯ অনলাইন সংস্করণ

জাবিতে ২৭৯ কোটি টাকার বাজেট অনুমোদন

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

জাবিতে ২৭৯ কোটি টাকার বাজেট অনুমোদন

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য ২৭৯ কোটি ১৩ লাখ টাকার বাজেট অনুমোদিত হয়েছে। বাজেটে বুদ্ধিবৃত্তিক পাঁচটি খাতে মোট ৪ দশমিক ৮৮ শতাংশ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

শুক্রবার (২৪ জুন) বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট হলে বার্ষিক সিনেট অধিবেশনে এ বাজেট উপস্থাপন করেন কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক রাশেদা আখতার। পরে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় সিনেটরদের মতামতের ভিত্তিতে এ বাজেট অনুমোদন করেন অধিবেশনের সভাপতি উপাচার্য অধ্যাপক মো. নূরুল আলম।

এর আগে গত ১২ জুন সিন্ডিকেটের বিশেষ সভায় এ বাজেট অনুমোদনের সুপারিশ করা হয়।

বাজেট বিশ্লেষণে দেখা যায়, এতে গবেষণা খাতে ৪ কোটি ৪০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে, যা মোট ব্যয়ের ১ দশমিক ৫৮ শতাংশ। ছাত্রবৃত্তি ও ফেলোশিপ খাতে রয়েছে ৩ কোটি ৭৫ লাখ টাকা, যা বাজেটের ১ দশমিক ৩৪ শতাংশ; গ্রন্থাগারের ব্যয় ৩ কোটি ১ লাখ ৫ হাজার টাকা, যা বাজেটের ১ দশমিক ০৮ শতাংশ। এছাড়া শিক্ষা ও বৈজ্ঞানিক সরঞ্জাম বাবদ বরাদ্দ ২ কোটি ৪১ লাখ টাকা, যা শূন্য দশমিক ৮৬ শতাংশ এবং প্রকাশনা বাবদ ৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা, যা মূল বরাদ্দের শূন্য দশমিক ০২ শতাংশ। সে হিসেবে বুদ্ধিবৃত্তিক এসব খাতে মোট বরাদ্দ দাঁড়ায় ৪ দশমিক ৮৮ শতাংশ।

বাজেটের অন্যান্য খাতগুলোর মধ্যে রয়েছে বিভাগ ও ইনস্টিটিউটসমূহের শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা বাবদ ৯৭ কোটি ৮৬ লাখ ৪১ হাজার টাকা, যা মোট বরাদ্দের ৩৫ দশমিক ০৬ শতাংশ। প্রশাসনিক ব্যয় ৩২ কোটি ১ লাখ ২৯ হাজার টাকা, যা মোট বাজেটের ১১ দশমিক ৪৭ শতাংশ। অবসরকালীন ভাতাবাবদ ব্যয় ৩০ কোটি ৬৮ লাখ, যা মোট বাজেটের ১০ দশমিক ৯৯ শতাংশ। আবাসিক হল ও হোস্টেলের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন-ভাতা বাবদ ২৬ কোটি ৫৮ লাখ ১৯ হাজার টাকা, যা মোট বাজেটের ৯ দশমিক ৫২ শতাংশ।

পরীক্ষা ও ভর্তি খরচ বাবদ ১৯ কোটি ৬৮ লাখ ৮৫ হাজার টাকা, যা মোট বাজেটের ৭ দশমিক ০৫ শতাংশ। সাধারণ কার্যক্রম ও আনুষঙ্গিক ব্যয় ধরা হয়েছে ৩২ কোটি ৩৮ লাখ ৩ হাজার টাকা।

ju2

এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পূর্ত বিভাগে ব্যয় ধরা হয়েছে ৮ কোটি ২৬ লাখ ২৮ হাজার টাকা। মূলধন ব্যয় ৮ কোটি ১৩ লাখ টাকা। বিবিধ ব্যয় ধরা হয়েছে ৫ কোটি ১৬ লাখ ১৩ হাজার টাকা। চিকিৎসা খাতে ২ কোটি ৭৪ লাখ ১১ হাজার টাকা, যা মোট ব্যয়ের এক শতাংশের নিচে। ছাত্রছাত্রীদের খেলাধুলা ও কো-কারিকুলার বাবদ ব্যয় ১ কোটি ৯৯ লাখ ১৬ হাজার টাকা।

আরও দেখা যায়, ২০২১-২২ অর্থবছরের মূল বরাদ্দ ছিল ২৬৬ কোটি ২৪ লাখ টাকা যা সংশোধিত আকারে দাড়ায় ২৭৮ কোটি ২ লাখ টাকা। সে হিসেবে গত অর্থবছরের তুলনায় ২০২২-২৩ অর্থবছরের মূল বাজেটে বরাদ্দ বেড়েছে ১১ কোটি ৭৮ লাখ টাকা।

এবারের বাজেটে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) থেকে পাওয়া যাবে ২৫৭ কোটি ১৩ লাখ টাকা। নিজস্ব আয় ধরা হয়েছে ২২ কোটি টাকা এবং ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়াবে ৪২ কোটি ৯০ লাখ ১৭ হাজার টাকা।

বাজেট প্রস্তাবকালে অধ্যাপক রাশেদা আখতার বলেন, ২০২১-২২ সালের সংশোধিত এবং ২০২২-২৩ সালের মূল বাজেটে বিভিন্ন বিভাগ, হল ও অফিসের চাহিদা অন্তর্ভুক্ত করে ৩১৭ কোটি ৫৬ লাখ ৩০ হাজার টাকার সংশোধিত এবং ৩২৬ কোটি ৬৬ লাখ ৪০ হাজার টাকার মূল চাহিদা বাজেট বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনে পাঠানো হয়। পরবর্তীকালে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন আবর্তক ও অনাবর্তক মঞ্জুরি হিসেবে সংশোধিত বাজেটে ২৭৮ কোটি ২ লাখ টাকা এবং মূল বাজেটে ২৭৯ কোটি ১৩ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

সিনেটররা এসময় সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের সময়কার সংশোধিত ও রেকারিং বাজেট পাসের বিষয়ে আপত্তি তোলেন। পাশাপাশি সিনেটররা সমাবর্তন, কনভোকেশন, অ্যালামনাই টাওয়ার, গবেষণা সেল, বিশ্ববিদ্যালয় জাদুঘর নির্মাণ, রাজনৈতিক দলসমূহের সহাবস্থান ও জাকসু নির্বাচনসহ অন্যান্য পর্ষদগুলোর নির্বাচন দাবি করেন।

  • সর্বশেষ - শিক্ষাঙ্গন