, ৪ ভাদ্র ১৪২৯ অনলাইন সংস্করণ

বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের গণশুনানি ১৮ মে

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের গণশুনানি ১৮ মে

বহু অভিযোগ-অনুযোগ সয়েছেন তিনি। অবশেষে সব দায় কাঁধে নিয়ে সরে গিয়েছিলেন। ধরেছিলেন ধৈর্য। আশায় বুক বেঁধেছিলেন, নিশ্চয়ই সময় আসবে। যে অপবাদ তাকে দেওয়া হয়েছিল, সেটাও ভুল প্রমাণ হবে। যে অপবাদের জেরে বন্ধ হয়েছিল পদ্মা সেতু প্রকল্প, সেই কাজটাও সফলভাবে সম্পন্ন হবে।

তবে অপবাদটা আগেই আদালতে ভুল প্রমাণিত হয়েছে। সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে পদ্মা সেতুর নির্মাণও। কাজ শেষে শনিবার (২৫ জুন) মুন্সিগঞ্জের মাওয়া ও শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তে পদ্মা সেতুর উদ্বোধন হয়েছে। সব অপবাদ ঘুচে যাওয়ায় আর পদ্মা সেতুর নির্মাণ শেষ হওয়ায় এখন সৈয়দ আবুল হোসেনই যেন পৃথিবীর সবচেয়ে নির্ভার মানুষ।

এ নির্ভার মানুষটিকেই দেখা গেলো পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে। মাওয়া প্রান্তে সুধী সমাবেশে বক্তব্য শেষে পদ্মা সেতুর ম্যুরাল ও উদ্বোধনী ফলক উন্মোচনস্থলে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি ডেকে নেন সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনকে। এসময় সৈয়দ আবুল হোসেন প্রধানমন্ত্রীর পাশে এসে কয়েক সেকেন্ড দাঁড়ান। এর পরেই দেখা যায় প্রধানমন্ত্রীর পা ছুঁয়ে সালাম করছেন তিনি। এসময় আবুল হোসেনের গায়ে স্নেহের হাত বুলিয়ে দেন প্রধানমন্ত্রী।

jagonews24

মোনাজাত থেকে ম্যুরাল ও ফলক উন্মোচন পর্যন্ত আবুল হোসেনকে প্রধানমন্ত্রীর পাশেই দেখা যায়। সবসময় তিনি ছিলেন হাস্যেজ্জ্বল। আবুল হোসেন ছাড়াও সেখানে সাবেক সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া উপস্থিত ছিলেন।

পাঁ ছুয়ে সালাম করার এ মুহূর্ত অল্পসময়েই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়। অবশ্য বিভিন্নজন এ নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন মন্তব্য করছেন। তবে সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনের বীরের মতো এ রকম ফিরে আসা গর্বের বলে মনে করছেন অনেকেই।

এরআগে সুধী সমাবেশে বক্তৃতার সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এ সেতু নির্মাণের পরিকল্পনার পর্যায়ে মিথ্যা অপবাদ দেওয়া হয়। সেই অপবাদ সহ্য করেছেন আমার পরিবারের সদস্য ছোট বোন শেখ রেহানা, তার পুত্র রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক, আমার দুই সন্তান সজীব ওয়াজেদ জয় এবং সায়মা ওয়াজেদ পুতুল, আমার অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান, সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন, সাবেক যোগাযোগ সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়াসহ কয়েকজন সহকর্মী। তারা চরম মানসিক যন্ত্রণার শিকার হয়েছিলেন। আমি তাদের প্রতি সহমর্মিতা জানাচ্ছি।’

পদ্মা সেতুর নির্মাণের পরিকল্পনার পর্যায়ে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে প্রকল্প থেকে সরে যায় বিশ্বব্যাংক। এরপর পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় তৎকালীন যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন এবং সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়াকে।

  • সর্বশেষ - জাতীয়