, ২১ আশ্বিন ১৪২৯ অনলাইন সংস্করণ

সরগরম চুইঝালের বাজার, বেড়েছে দাম

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

সরগরম চুইঝালের বাজার, বেড়েছে দাম

মাংসের স্বাদ বাড়াতে ‘চুইঝাল’ অন্যতম মশলা হিসেবে দক্ষিণ-পশ্চিমালের মানুষের কাছে জনপ্রিয়। কোরবানির ঈদকে কেন্দ্র করে বাগেরহাটে বেড়েছে চুইঝালের চাহিদা। বেড়েছে দামও।  

সারা বছর চুইঝালের চাষ হয়। পাওয়াও যায় হাট-বাজারে। তবে কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে চুইঝাল বিক্রি বেড়ে যায়। অন্যান্য সময়ে চুইঝাল কেজি প্রতি ৪০০ থেকে ৮০০ টাকা করে বিক্রয় হলেও বর্তমানে চুইঝালের বিক্রি হচ্ছে ৬০০ থেকে ১২০০ টাকা করে।

কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জেলা বাগেরহাট, খুলনা, নড়াইল, যশোর, সাতক্ষীরা এলাকায় জনপ্রিয়  চুইঝাল। বর্তমানে দেশের অন্যান্য জেলাতেও ঝাল হিসেবে এর জনপ্রিয়তা বাড়ছে। চুই লতা জাতীয় গাছ। এর কাণ্ড ধূসর এবং পাতা পান পাতার মতো, দেখতে সবুজ রংয়ের। চুইঝালের রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ওষধি গুণ।  চুইলতার শিকড়, কাণ্ড, পাতা, ফুল- ফল সবই ভেষজ গুণসম্পন্ন। চুইঝাল বেশি ব্যবহার করা হয়  হাঁস ও গরুর মাংস রান্না করতে। রান্নার জন্যে চুইঝালের কাণ্ড ব্যবহার করা হয়। চুইঝালে দশমিক ৭ শতাংশ সুগন্ধি তেল থাকে। 

বাগেরহাট শহরের প্রধান বাজারের চুইঝাল বিক্রেতা জনি জানান, চুইঝাল সারাবছর ভালোই বিক্রি হয়। বাগেরহাটসহ খুলনাঞ্চলের অন্যতম বিখ্যাত মশলা চুইঝাল। বছরের প্রায় সবসময় আমরা চুইঝাল বিক্রি করি। কোরবানির সময় ঘরে ঘরে মাংস রান্না হয়। এ কারণে এ সময় বিক্রি বেশি হয়।

তিনি বলেন, আগে যে চুইঝাল চিকন (আকারে ছোট) ৪০০ থেকে ৬০০ টাকায় ও কিছুটা বড় চুইঝাল ৮০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হতো এখন তা ৮০০ থেকে ১২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। কোরবানি উপলক্ষে বাজারে চাহিদা বাড়ায় দাম বেড়েছে।

আজিজুর রহমান টিটু নামের এক চুইঝাল চাষি বলেন, চুইঝাল মূলত একটি লতাগুল্ম গাছের শিকড় ও কাণ্ড। একটি গাছ থেকে পরিণত চুইঝাল সংগ্রহ করতে হলে গাছটি কেটে সংগ্রহ করতে হয়। গাছ বড় হতে প্রায় ছয় মাস থেকে বছরখানিক সময় লাগে। সেই জন্য চুইঝালের দাম কিছুটা বেশি। কোরবানি উপলক্ষে চুইঝালের চাহিদা বেড়েছে, পরিণত গাছের পরিমাণ কম থাকায় দাম কিছুটা বেড়েছে।

বাজারের আরেক ব্যবসায়ী তালিম হোসেন জানান, সাধারণত দৈনিক ৫ থেকে ১০ কেজি চুইঝাল বিক্রি হয়। কিন্তু ঈদের সময় চাহিদা বাড়ায় দৈনিক প্রায় ২০ থেকে ৩০ কেজি চুইঝাল বিক্রি করছি।

তানজীম আহম্মেদ নামে এক ক্রেতা বলেন, চুইঝাল ছাড়া গরুর মাংসের স্বাদ পুরোপুরি পাই না । ঈদের সময় চুইঝাল দিয়ে রান্না করা মাংস অতিথিদের খুবই পছন্দ। তাই দাম বাড়লেও এটা লাগবেই।

বাগেরহাট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. আজিজুর রহমান বলেন, ঈদের সময়ে চুইঝালের কদর বেড়ে যায়। জেলায় ১৫ হেক্টর জমিতে প্রায় ৩০ টন চুইঝাল উৎপাদন হয়। যার বাজার মূল্যে দেড় কোটির টাকার অধিক। ব্যক্তিগত ও বাণিজ্যিকভাবে বাগেরহাটে দিন দিন চুইঝালের চাষ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

  • সর্বশেষ - অন্যান্য