, ২৬ মাঘ ১৪২৯ অনলাইন সংস্করণ

কাশ্মীরের দুর্দান্ত ৭ পাহাড়ি এলাকা

  ভ্রমণ ডেস্ক

  প্রকাশ : 

কাশ্মীরের দুর্দান্ত ৭ পাহাড়ি এলাকা

সাইফুর রহমান তুহিন

কাশ্মীরকে যারা ‘পৃথিবীর স্বর্গ’ হিসেবে গণ্য করেন, তারা কখনো না কখনো জায়গাটিতে গিয়ে অন্যরকম এক অপার্থিব সুখের দেখা পেয়েছেন সেখানকার চোখধাঁধানো প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের কারণে। একথা সত্য, কাশ্মীর প্রকৃতির খুব আশীর্বাদপুষ্ট একটি জায়গা। মৌসুমটা গ্রীষ্ম হোক, শরৎ কিংবা শীত, কাশ্মীর সব সময়ই থাকে নয়নাভিরাম। গ্রীষ্মকালে চতুর্দিকে থাকে সবুজের সমারোহ আর শীতকালে পরিণত হয় ‘উইন্টার ওয়ান্ডারল্যান্ড’ অর্থাৎ শীতের বিস্ময়ভূমিতে। উদাহরণ হিসেবে গুলমার্গের কথা বলা যায়। এটি হচ্ছে স্কিয়িংয়ের জন্য বিশ্বের সেরা গন্তব্যগুলোর একটি।

আজ আমরা জানবো কাশ্মীরের ছবির মতো সুন্দর কিছু পার্বত্য এলাকা সম্পর্কে; যেগুলোর সৌন্দর্যকে প্রাণভরে উপভোগ করতে পারবেন ভ্রমণপিপাসুরা।

বেতাব ভ্যালি
আগে জানা যাক জায়গাটির নামকরণ সম্পর্কে। সানি দেওল এবং অমৃতা সিং অভিনীত বিখ্যাত হিন্দি সিনেমা ‘বেতাব’র নামেই নামকরণ হয়েছে বেতাব ভ্যালির। এ ছবির শুটিং হওয়ার আগে জায়গাটি পরিচিত ছিল ‘হাজান ভ্যালি’ নামে। অনন্তনাগ জেলায় অবস্থিত বেতাব ভ্যালি এককথায় নয়নমনোহর। গ্রীষ্মকালে এর সেরা দিকটি হলো অবারিত সবুজের সমারোহ এবং তৃণভূমিগুলো বিচিত্র সব বন্য ফুলে ছেয়ে যাওয়া। শুধু তা-ই নয়, নদী আর জলাভূমিগুলো পানিতে টইটম্বুর হয়ে ওঠে, পাহাড়গুলো হয়ে যায় বনভূমিতে পরিপূর্ণ।

jagonews24

গুরেজ ভ্যালি
অনেকের কাছেই খুব পরিচিত নয়। পর্যটন মানচিত্রে গুরেজ ভ্যালি হলো একটু আড়ালে থাকা চমৎকার জায়গাগুলোর একটি। এটি একটি দৃষ্টিনন্দন পার্বত্য এলাকা, যেখানে আছে উঁচু পর্বতমালা, কোলাহলমুক্ত শান্ত পরিবেশ আর সৌন্দর্যের পসরা। ভৌগলিক অবস্থানগত কারণে জায়গাটি বছরের প্রায় অর্ধেক সময় ভারতের মূল ভূ-খণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন থাকে। তবে গ্রীষ্মকালে কিন্তু এখানে বিরাজ করে স্বর্গীয় সৌন্দর্য। কিশান গঙ্গা নদীকে তখন পাওয়া যায় সেরা রূপে, পার্বত্য এলাকা আচ্ছাদিত হয়ে থাকে সবুজ ঘাস আর বন্য ফুলে। অদূরে তুষারাবৃত পর্বতমালা দাঁড়িয়ে থাকে মাথা উঁচু করে।

নাগিন ভ্যালি
জায়গাটি যেন প্রকৃতিপ্রেমীদের জন্য এক টুকরো মুক্তা। চমকপ্রদ সব আলপাইন প্রান্তর, পাইন ও দেবদারু বন এবং পরিপূর্ণ জলাধারগুলো নিয়ে নাগিন ভ্যালির অবস্থান গুলমার্গ বায়োস্ফিয়ার রিজার্ভের কাছাকাছি। যদি বন্য জীবনের প্রতি আগ্রহ থাকে, তাহলে নাগিন ভ্যালি উপহার দেবে লাল শিয়াল ও মাস্ক হরিণ দেখার সুযোগ। ভাগ্য ভালো থাকলে দেখতে পারবেন লজ্জাবতী হাঙ্গুল।

jagonews24

গুলমার্গ
বিশেষ এ গন্তব্যের চমক সম্পর্কে কে না জানে? বরফ পড়া শুরু হলে গুলমার্গ হয়ে যায় ‘উইন্টার ওয়ান্ডারল্যান্ড’ বা শীতের বিস্ময়ভূমি। স্কিয়িংয়ের জন্য খুবই আদর্শ জায়গা। এ কারণে এটি রিসোর্টের শহর। তবে যখন বরফ পড়ে না; তখন জায়গাটি ‘দ্য মিডো অব ফ্লাওয়ার্স’ অর্থাৎ পুষ্পশোভিত প্রান্তর হয়ে যায়। গুলমার্গের অবস্থান পির পাঞ্জাল রেঞ্জে, যা বারামুল্লা ও শ্রীনগরের খুব কাছে।

সিন্ধু ভ্যালি
সিন্ধু নদের তীরেই অবস্থান। একসময় সিন্ধু ভ্যালি ছিল বিখ্যাত সিল্ক রোডের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। ছবির মতো সুন্দর উপত্যকাটি ভারত, চীন ও মধ্য এশিয়াকে সংযুক্ত করেছে। জায়গাটি সেই রুটে অবস্থিত, যা কাশ্মীর ভ্যালিতে ইসলাম, হিন্দু ও বৌদ্ধ ধর্মীয় মতবাদকে পরিচিত করেছে। সিন্ধু ভ্যালি মূলত কিছুটা ফাঁকযুক্ত সংকীর্ণ উপত্যকা, যা ছবি তোলার জন্য দারুণ।

jagonews24

লিডার ভ্যালি
অভিজাত আলপাইন বনভূমি এবং জমকালো লিডার নদীর প্রাণকেন্দ্র লিডার ভ্যালিও আকর্ষণীয়। পর্বতমালা আর চমৎকার নদী দ্বারা পরিবেষ্টিত পুরো জায়গাটিই ছবির মতো সুন্দর ল্যান্ডস্কেপের মধ্য দিয়ে গেছে, যা মনে করিয়ে দেবে শৈশবে আঁকা ছবিগুলোর কথা। ছোটবেলায় যেসব ছবি এঁকেছিলেন, সেগুলোর চেয়েও আকর্ষণীয় ও বাস্তব হলো লিডার ভ্যালি। যখন এ জায়গায় অবস্থান করবেন; তখন আরু, পাহালগাম, বেতাব ভ্যালি ও আকাদ দূরের কোনো গন্তব্য নয়।

ইউসমার্গ
কাশ্মীরি শব্দ ইউসমার্গ দ্বারা বোঝায় ‘দ্য মিডো অব জেসাস’। অর্থাৎ যিশুখ্রিষ্টের ভূমি। ভ্রমণসংক্রান্ত বিভিন্ন কাহিনি থেকে জানা যায়, একসময় যিশুখ্রিষ্ট জায়গাটিতে ঘুরেছিলেন বলেই এর এমন নামকরণ। কথাটি কতোটা সত্যি তা বলা মুশকিল। তবে এটি সবারই জানা, কেউ কখনো এ উপত্যকায় ভ্রমণ করলে চমৎকার সব স্মৃতি নিয়ে বাড়ি ফেরে। যদি ট্রেকিং করতে চান অথবা কোনোকিছু না করে সবুজ মাঠের মধ্যে শুয়ে থাকতে চান, তাহলে ইউসমার্গে সবকিছুই আছে। আকর্ষণীয় সবুজ মাঠসমূহ কিংবা বিশাল বনভূমির উপস্থিতির কারণে আরামপ্রদ ছুটি কাটানো কিংবা রোমাঞ্চকর কাজকর্মের জন্য ইউসমার্গ একেবারে উপযুক্ত গন্তব্য। রাজ্যের রাজধানী শ্রীনগর থেকে প্রায় ৪৭ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান এলাকাটির।

লেখক: ভ্রমণ লেখক।

  • সর্বশেষ - ভ্রমণ