, ২১ মাঘ ১৪২৯ অনলাইন সংস্করণ

টি-২০ বিশ্বকাপের ভেন্যু সব আকর্ষণ নিয়ে প্রস্তুত বিশ্বের সর্ববৃহৎ ক্রিকেট স্টেডিয়াম

  স্পোর্টস ডেস্ক

  প্রকাশ : 

টি-২০ বিশ্বকাপের ভেন্যু সব আকর্ষণ নিয়ে প্রস্তুত বিশ্বের সর্ববৃহৎ ক্রিকেট স্টেডিয়াম
  • ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু

জমজমাট টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য প্রস্তুত অস্ট্রেলিয়া। ২০২২ আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আসর বসতে যাচ্ছে তাসমান সাগরের পাড়ের এই দেশটিতে। টুর্নামেন্টের ম্যাচ আয়োজন করবে অ্যাডিলেড, ক্ল্যারেন্স, জিলং, পার্থ, ব্রিসবেন, মেলবোর্ন ও সিডনি।

টুর্নামেন্টের সেমিফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ড এবং অ্যাডিলেড ওভালে। ফাইনাল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ স্টেডিয়াম মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে।

এই বিশ্বকাপে ১৬টি দল অংশগ্রহণ করবে। নয়নাভিরাম ও অপার সৌন্দর্যমন্ডিত অস্ট্রেলিয়ার মাঠের উইকেটের আচরণ হবে ভিন্ন। চিরাচরিত পেসারদের স্বর্গভূমি আর টেকনিক্যাল দক্ষতাসম্পন্ন ব্যাটারদের সহায়ক হবে অজিদের মাঠের পিচ।

তাহলে আমরা জেনে নেই স্টেডিয়ামগুলোর সংক্ষিপ্ত পরিচিতি এবং মাঠের পিচের আচরণ সম্পর্কে। শুরুতেই মেলবোর্ন ক্রিকেট স্টেডিয়াম

মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ড

১৮৫৩ সালে স্থাপিত এ স্টেডিয়ামটি অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়া রাজ্যের রাজধানী মেলবোর্নের ইয়ারা পার্কে অবস্থিত। মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ড ক্রিকেটের জন্য সবচেয়ে বড় হলেও, বিশ্বের দশম সর্ববৃহৎ স্টেডিয়াম হিসেবে এর পরিচিতি রয়েছে।

এছাড়াও এটি অস্ট্রেলিয়ার সর্ববৃহৎ স্টেডিয়াম। এটি নির্মাণ করতে খরচ হয়েছিল ৪৬ কোটি মার্কিন ডলার। এই মাঠের ধারণ ক্ষমতা ১ লাখ ২৪ জন। এই মাঠে এবারের বিশ্বকাপ আসরের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হবে।

১৮৭৭ সালের ১৫ মার্চ এখানেই ক্রিকেট ইতিহাসের প্রথম টেস্ট ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে ৪৫ রানে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে জয় তুলে নেয় অস্ট্রেলিয়া। আর ১৯৭১ সালের ৫ জানুয়ারি এই মাঠে প্রথম একদিনের আন্তর্জাতিক খেলা অনুষ্ঠিত হয়। সে ম্যাচে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে জয় পেয়েছিলেন অজিরা।

উইকেট কেমন আচরণ করবে?

এখানকার উইকেট মূলত ব্যাটিংবান্ধব উইকেট হিসেবে পরিচিত। পেসাররা এখানে বাউন্স পাবে। স্পিনাররা খেলার মাঝের ওভারগুলোতে সুবিধে পাবে। তবে মজার বিষয় হল- অতীতে প্রায় অনেক ম্যাচেই দেখা গেছে এ পিচে পেসাররা নিয়ন্ত্রিত বোলিং করে ব্যাটারদের বড় স্কোর করতে দেয়নি।

তবে এ উইকেটে প্রথমেই ব্যাট করাকেই শ্রেয় মনে করবে যে কোনো দল। এই মাঠে প্রায় ১৫টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে। যেখানে প্রথম ব্যাটিং করা দল ৭ বার বিজয়ী হয়েছেন।

এই মাঠের সর্বোচ্চ স্কোর ১৮৪/৪, যা ভারতের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়া করেছিল। এই মাঠে যারা পরে ব্যাট করেছেন, তাদের গড় রান ১২৬। এই মাঠে পরে ব্যাট করে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ১৭২ রান টপকে জয় পান শ্রীলংকা। এটাই এ মাঠের সর্বোচ্চ রান টপকে যাওয়ার রেকর্ড।

  • সর্বশেষ - খেলাধুলা