, ১৭ চৈত্র ১৪২৯ অনলাইন সংস্করণ

রাজবাড়ীতে পলো দিয়ে মাছ ধরা উৎসব

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

রাজবাড়ীতে পলো দিয়ে মাছ ধরা উৎসব

রাজবাড়ীতে বাঁশের তৈরি পলো নিয়ে কয়েক গ্রামের শত শত মানুষ নেমে পড়েন খালে। শখের বসে পলো নিয়ে মাছ ধরতে গেলে খালি হাতে ফিরেছে অনেক মানুষ। তাদের পলোর নিচে ধরা পড়েনি বিভিন্ন জাতের দেশিয় প্রজাজির মাছ। তবে বিভিন্ন গ্রামের মানুষ দীর্ঘ কয়েক বছর পর পলো উৎসবে আসায় উৎসবের আমেজ সৃষ্টি হয়। দীর্ঘদীন পর পলো দিয়ে মাছ ধরার উৎসব দেখতে খালেপাড়ে আসেন অনেক মানুষ। আজ বৃহস্পতিবার সকালে জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার বহরপুর ও জামালপুর খালে মাছ ধরার উৎসবে মেতে উঠেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, পলো দিয়ে মাছ ধরার সময় শীতকাল। এ সময় খালে-বিলের পানি শুকিয়ে যায়। বাঁশ ও জাল দিয়ে ছোট-বড় অসংখ্য পলো তৈরি করা হয়। বেশ কয়েকদিন ধরে ঘোষণা দেওয়া হয় পলো দিয়ে মাছ ধরার।

এলাকার শৌখিন ও পেশাদার মাছ শিকারিরা বলেন, কয়েক বছর ধরে সরকার খাল বিক্রি করেন। যে কারণে বালিয়াকান্দির বিভিন্ন খালে সাধারণ মানুষের মাছ ধরতে দেওয়া হয় না। এ বছর খাল বিক্রি না হওয়ার কারণে সাধারণ মানুষ মাছ শিকার করছে। তবে খালে বেশ কয়েকজন দখলদার রয়েছে। যারা স্থানীয় প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে খাল দখল করে রেখেছেন।

পলো দিয়ে মাছ ধরার উৎসবে অংশ নেন স্থানীয় হামেদ শেখ (৭৩)। তিনি বলেন, শখ করে মাছ ধরতে আসছি খালে। তবে খালে মাছ নেই। দেশিয় মাছ বিলুপ্তির পথে। শুধু আমি একা নই। আমার মতো অনেকেই মাছ পায়নি। মূলতো অপরিকল্পিতভাবে মাছ নিধন করার কারণে মাছ ধ্বংস হয়ে গেছে।

খামারমাগুরা গ্রামের কালিদাস বৈরাগী বলেন, সবাই একত্রিত হয়ে মাছ মারতে আসছি এটাই আমাদের মূল উদ্দেশ্য ছিল। কিন্তু অনেকেই পেশাদার জেলে আসছেন। তারা মাছ পায়নি। অথচ কয়েক বছর পূর্বে এই খালে পলো উৎসবে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ পাওয়া যেত। এক কথায় বলা যায় হারিয়ে যাচ্ছে দেশিয় প্রজাতির মাছ।

পলো উৎসব দেখতে আসা দর্শনার্থী দ্বীপ (৩১) বলেন, আমি কোনদিন পলো দিয়ে মাছ ধরা দেখিনি। এই প্রথম মাছ ধরা দেখতে আসলাম। কয়েকজন বেশ কয়েকটি শৈল আর টাকি মাছ পেয়েছেন। তাছাড়া অন্য কোন মাছ পায়নি।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মশিউর রহমান বলেন, গ্রামবাংলার একটি প্রচীন উৎসব পলো দিয়ে মাছ ধরা। মূলতো চায়না দুয়ারীর কারণে দেশিয় মাছ বিলুপ্তির পথে। আমরা চেষ্টা করছি দেশিয় মাছ রক্ষায়।

  • সর্বশেষ - অন্যান্য