, ২১ মাঘ ১৪২৯ অনলাইন সংস্করণ

বিশ্বসেরাদের টপকে গ্রুপ শীর্ষে মরক্কো

  স্পোর্টস

  প্রকাশ : 

বিশ্বসেরাদের টপকে গ্রুপ শীর্ষে মরক্কো

কাতার বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বে ঘটল একের পর এক অঘটন। ফিফা র‌্যাংকিংয়ের ৫১তম দল সৌদি আরবের কাছে র‌্যাংকিয়ের তৃতীয় স্থানে থাকা আর্জেন্টিনার হার দিয়ে শুরু। এরপর ২৪তম জাপানের কাছে পরাজয় র‌্যাংকিংয়ের ৭তম বিশ্বচ্যাম্পিয়ন স্পেন ও ১১তম জার্মানির, ২২তম মরক্কোর কাছে হেরে যায় র‌্যাংকিংয়ের দ্বিতীয় দল বেলজিয়াম। এতসব অঘটনের সাক্ষী কাতার বিশ্বকাপ।

এর মধ্যে মরক্কো শুধু অঘটনই নয়, রীতিমতো বিশ্বকে অবাক করে দিয়ে ৩৬ বছর পর আবার বিশ্বকাপের শেষ ষোলোয় জায়গা করে নিয়েছে। তাও আবার গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে। এফ-গ্রুপে ছিল বেলজিয়াম ও ক্রোয়েশিয়ার মতো শক্তিশালী দল। সেখান থেকে দুর্দান্ত পারফম্যান্স করে শেষ ষোলোয় জায়গা নিশ্চিত করেছে আফ্রিকার দেশটি। 

গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে বৃহস্পতিবার রাতে কানাডাকে ২-১ গোলে হারায় তারা। এর আগে ১৯৮৬ সালে বিশ্বকাপের প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছিল মরক্কো। সেটাই ছিল প্রথম ও শেষবার। কাতারে আবার একবার বিশ্বকাপের শেষ ষোলোয় জায়গা করে নিল আফ্রিকার দেশটি।

এবারের বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বে বেলজিয়ামকে হারিয়ে চমক দিয়েছিল মরক্কো। সেই ম্যাচেই তাদের প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছিল। শেষ ম্যাচে কানাডাকে হারাতে হতো তাদের। সেটাই করলেন ইউসুফ এননেসিরি, হাকিম জিয়েচরা।

কানাডা এবারের বিশ্বকাপে দ্রুত গতিতে ফুটবল খেলেছে। কিন্তু দলের বেশির ভাগ ফুটবলার তরুণ হওয়ায় সুযোগ কাজে লাগাতে ব্যর্থ হচ্ছিল তারা। মরক্কোর বিরুদ্ধেও সেটাই দেখা গেল। খেলার শুরুতেই আক্রমণের ঝড় তোলে মরক্কো। ৪ মিনিটের মাথায় গোল করে দলকে এগিয়ে দেন মরক্কোর অন্যতম সেরা ফুটবলার হাকিম জিয়েচ। শুরুতে গোল খেয়ে কিছুটা চাপে পড়ে যায় কানাডা। তাদের রক্ষণ এলোমলো হয়ে যায়। সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে একের পর এক আক্রমণ তুলে আনে আফ্রিকার দেশ। ২৩ মিনিটে ব্যবধান বাড়ায় মরক্কো। এবার গোল করেন ইউসুফ।

প্রথমার্ধে আরও গোল করার চেষ্টা করে মরক্কো। কিন্তু সফল হয়নি তারা। অন্যদিকে, পাল্টা আক্রমণ থেকে গোল করার চেষ্টা করছিল কানাডা। ৪০ মিনিটের মাথায় কানাডার ফুটবলারের শট মরক্কোর ডিফেন্ডার আগুয়েরোর পায়ে লেগে গোলে ঢুকে যায়। বলের দিক পরিবর্তন হয়ে যাওয়ায় কিছু করার ছিল না মরক্কোর গোলরক্ষক বোনোর।

দ্বিতীয়ার্ধে একটু রক্ষণাত্মক হয়ে পড়ে মরক্কো। গোল করার থেকে গোল বাঁচানোর দিকে বেশি নজর দেয় তারা। এই সুযোগে কানাডা বেশ কয়েকটি আক্রমণ তুলে আনে। কিন্তু ভাঙতে পারেনি মরক্কোর রক্ষণকে। নিজেদের ১০০ শতাংশ দিয়ে খেললেন হাকিমরা। তার ফলও পেলেন। শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলে জিতে মাঠ ছাড়লেন তারা। এই জয়ের ফলে ৩ ম্যাচ খেলে মরক্কোর পয়েন্ট ৭। তারা গ্রুপ শীর্ষে থেকে প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালে গেল। এই গ্রুপের দ্বিতীয় দল হিসেবে পরের রাউন্ডে গেল গত বিশ্বকাপের রানার্সআপ ক্রোয়েশিয়া।

  • সর্বশেষ - খেলাধুলা