ময়মনসিংহ, , ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ অনলাইন সংস্করণ

করোনায় আক্রান্ত রোগীর ভেন্টিলেটর কেন প্রয়োজন

  অনলাইন ডেস্ক

  প্রকাশ : 

করোনায় আক্রান্ত রোগীর ভেন্টিলেটর কেন প্রয়োজন
প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিত্সক ডা. এ বি এম আবদুল্লাহ । ছবি: সংগৃহীত

কোভিড-১৯-এর প্রতিষেধক বাজারজাত করতে প্রায় দেড় বছর সময় লেগে যেতে পারে বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। কারণ ওষুধ প্রাণী ও মানুষের শরীরে প্রয়োগ করে তার ফলাফল পেতে বেশ সময় লাগে।

এই সময়কে আরো কমানোর জন্য প্রাণপাত করছেন বিজ্ঞানীরা। বর্তমান পরিস্থিতিতে চিকিত্সকদের কাছে সবচেয়ে প্রয়োজনীয় উপাদান হচ্ছে ভেন্টিলেটর।

দেশীয়ভাবে উত্পাদন বিদেশ থেকে আমদানি করা এমনি নানা প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে ভেন্টিলেটরের সংখ্যা বাড়ানোর প্রচেষ্টা করে চলেছে সরকার। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, এই ভেন্টিলেটর কেন প্রয়োজন?

এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিত্সক ডা. এ বি এম আবদুল্লাহ ইত্তেফাককে বলেন, সারা বিশ্বেই হাসপাতালের চিকিত্সা ছাড়াই কোভিড-১৯ রোগীদের প্রায় ৮০ শতাংশ সুস্থ হয়ে উঠছেন। তবে, আক্রান্তদের প্রতি ছয় জনের মধ্যে গড়ে এক জন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ছেন।

তিনি বলেন, করোনা ভাইরাস সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করে ফুসফুসের। শরীরের রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা এ ভাইরাসের সঙ্গে লড়াইয়ে জন্য বেশি সংখ্যায় রক্তকোষ সেখানে পাঠাতে থাকে। এতে রক্তনালিগুলো ফুলে ওঠে। এতে অন্য একটি সমস্যা দেখা দিতে পারে। ফুসফুসে তরল ঢুকে যাওয়া। এমন ক্ষেত্রে শ্বাস নেওয়া আরো কঠিন হয়ে ওঠে। শরীরের অক্সিজেনের জোগান তাতে কমে যায়। অক্সিজেনের জোগান বাড়াতেই দরকার পড়ে ভেন্টিলেটরের।

এটি অক্সিজেনযুক্ত হাওয়া পাম্প করে ঢোকায় নাক দিয়ে। ভেন্টিলেটরের হাওয়ার তাপমান ও আর্দ্রতা যাতে রোগীর দেহের সঙ্গে মেলে, তার জন্য ভেন্টিলেটরে থাকে হিউমিডিফায়ার নামে একটি অংশ। শ্বাস নেওয়া ও ছাড়ার সঙ্গে যুক্ত পেশিগুলোর ওপরে চাপ কমাতে বা সেগুলো শিথিল রাখতে প্রয়োজনমতো ওষুধও দেওয়া হয়। এতে রোগী ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করে তাকে পরাজিত করার জন্য বাড়তি সময় পেয়ে যান।

ডা. আবদুল্লাহ বলেন, শ্বাসকষ্ট অল্প হলে সাধারণ (নন-ইনভেসিভ) ভেন্টিলেশনেই কাজ হয়। এ ক্ষেত্রে নাকে-মুখে একটি মাস্ক লাগিয়ে অক্সিজেনযুক্ত হাওয়া বাড়তি চাপে পাঠানো হয়। কিন্তু (মেকানিক্যাল) ভেন্টিলেটরে দিলে নিঃশ্বাস-প্রশ্বাসের পুরো নিয়ন্ত্রণ থাকে এই যন্ত্রটির হাতে। আর এ জন্যই চিকিত্সক ও সেবাকর্মীদের সার্বক্ষণিক নজরদারি প্রয়োজন হয়।

কিন্তু হাসপাতালগুলোর ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটগুলোতে যখন রোগীর চাপ বাড়তে থাকে তখন রোগীর সার্বক্ষণিক নজরদারি করা কঠিন হয়ে পড়ে। তাই ভেন্টিলেটরের গুণমান সম্পর্কে শতভাগ নিশ্চিত হওয়াটাও জরুরি।

ভেন্টিলেটর তৈরি খুব একটা জটিল বিষয় নয়। তবে, এর মান দেখে অনুমোদন প্রক্রিয়াটা সময়সাপেক্ষ। পরীক্ষা না করে কোনো ভেন্টিলেটরই রোগীকে দেওয়া হয় না। সে কারণেই সময় বেশি লাগে।

  • সর্বশেষ - করোনা আপডেট