ময়মনসিংহ, , ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ অনলাইন সংস্করণ

‘ছেলেকে কাছে পাওয়ার অপেক্ষায় আছি’

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

‘ছেলেকে কাছে পাওয়ার অপেক্ষায় আছি’
অভিনেত্রী ববিতা। ছবি: সংগৃহীত

মহামারি করোনায় স্তব্ধ এখন পুরো বিশ্ব। প্রতিদিন করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েই চলছে। সেই সঙ্গে প্রতিটি মানুষের সময় কাটছে আতঙ্কের মধ্যে। করোনার প্রভাব পড়েছে বিনোদন দুনিয়াও। বন্ধ হয়ে গেছে সকল কাজকর্ম। চলছে না কোন নতুন কাজের শুটিং। তারকারা সবাই এখন ঘরবন্দি। অপেক্ষা করছেন কবে বিশ্ব করোনা মুক্ত হবে। শঙ্কায় আছেন ছেলেমেয়ে, পরিবার ও আত্মীয়স্বজনকে নিয়ে।

এমন শঙ্কায় ঘরবন্দি জীবন কাটছে অভিনেত্রী ববিতার। একমাত্র ছেলে অনিক থাকেন কানাডায়। এছাড়া তার আত্মীয়স্বজন অনেকেই দেশের বাইরে থাকেন।

ববিতা বলেন, পরিবারের মানুষদের নিয়ে খুবই শঙ্কায় আছি। ভেবেছিলাম মে বা জুন মাসে কানাডায় ছেলের কাছে যাব, কিন্তু করোনা সব মাটি করে দিলো। কবে যেতে পারবো জানি না। কবে করোনার থাবা কমবে, কবে যোগাযোগ ব্যবস্থা আগের মতো হবে সেটা বলা খুব মুশকিল। পৃথিবীর সব দেশের মানুষই এখন করোনা আতঙ্কে সময় পার করছে। ছেলেটা আমার কাছে থাকলে কিছুটা হলেও স্বস্তিতে থাকতে পারতাম। একমাত্র ছেলেকে কাছে পাওয়ার অপেক্ষায় আছি। এছাড়া আমার ভাই বোন, আত্মীয়স্বজনদের অনেকেই দেশের বাইরে আছে। তাদের নিয়েও ভয় কাটছে না। সবার সঙ্গে ফোনে কথা বলি, তার পরও মন আর মানে না। এ সব ভেবে খুব অস্থিরতায় সময় কাটছে।’

ঘরবন্দি এই সময়ে তারকারা নিজ নিজ জায়গা থেকে সকলকে সচেতন করার চেষ্টা করছেন। নিজে সচেতন থাকার পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়া বা গণমাধ্যমে তাদের সচেতনতার বার্তা প্রকাশ করছেন। এ প্রসঙ্গে ববিতা বলেন, ‘এই মহামারি থেকে একমাত্র সচেতনতাই রক্ষা করতে পারে। অকারণে বাইরে না গিয়ে ঘরে থাকুন। জরুরি কোনো প্রয়োজনে যদি যেতেই হয়, তা হলে পর্যাপ্ত প্রতিরোধ ব্যবস্থা নিয়ে যাবেন। এটা এমন একটা ভাইরাস, যা চোখে দেখা যায় না। হয়তো একদিন এটা কমে আসবে, কিন্তু এটার পরবর্তী অবস্থার ভয়াবহতা আরও কঠিন হতে পারে। অর্থনীতি গভীর সঙ্কটের মধ্যে পড়তে পারে। আমাদের এই ছোট দেশে এমন প্রভাব পড়লে সকলেরই জীবন ধারণ মুশকিল হয়ে পড়বে। তাই এখন থেকেই আমাদের আরও বেশি সাবধান হতে হবে।’

  • সর্বশেষ - বিনোদন