ময়মনসিংহ, , ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ অনলাইন সংস্করণ

করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশকে ২২ মিলিয়ন ডলার দিল যুক্তরাষ্ট্র

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশকে ২২ মিলিয়ন ডলার দিল যুক্তরাষ্ট্র

নভেল করোনাভাইরাস রোগ (কোভিড-১৯) বিস্তার প্রতিরোধের প্রস্তুতি এবং কার্যক্রম বাস্তবায়নে বাংলাদেশ সরকারের চলমান প্রচেষ্টাগুলোতে সম্পূরক সহায়তা হিসাবে যুক্তরাষ্ট্র সরকার দেশটির আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা (ইউএসএআইডি) এবং সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের (সিডিসি) মাধ্যমে ২২ মিলিয়ন ডলারের বেশি অনুদান প্রদান করেছে। এই তহবিল বিগত ২০ বছরে বা্ংলাদেশে ১ বিলিয়ন ডলারের অধিক স্বাস্থ্য সহায়তার ধারাবাহিকতা। এর মাধ্যমে বাংলাদেশের সকল মানুষের জন্য মানসম্পন্ন জীবনরক্ষাকারী স্বাস্থ্যসেবার সুযোগ নিশ্চিত করতে যুক্তরাষ্ট্রের দীর্ঘমেয়াদি অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত হয়েছে।


কোভিড-১৯’এর প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকে যুক্তরাষ্ট্র সরকার সারা বিশ্বে জরুরি স্বাস্থ্যসেবা খাতে এবং মানবিক, অর্থনৈতিক ও উন্নয়ন সহায়তা হিসাবে বিশেষত সরকার, আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান এবং বেসরকারি সংস্থাগুলোকে এই মহামারি মোকাবেলায় ৯০০ মিলিয়ন ডলারের বেশি অনুদানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। এই তহবিলের মাধ্যমে জনস্বাস্থ্য শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা সুবিধাদির সুরক্ষা, পরীক্ষাগার বৃদ্ধি, রোগ পর্যবেক্ষণ এবং দ্রুত সাড়া প্রদানের সক্ষমতা বৃদ্ধির ফলে ১২০টি দেশে মানুষের জীবন বাঁচবে। যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশে কোভিড-১৯ মোকাবেলার প্রস্তুতি ও কার্যক্রম বাস্তবায়নে যেসব ক্ষেত্রে সহায়তা দিচ্ছে সেগুলো হলো: রোগনির্ণয় ও পরীক্ষাগারের সক্ষমতা জোরদার করা; আক্রান্তের ব্যবস্থাপনা এবং সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ চর্চা উন্নতকরণ; সরবরাহ ব্যবস্থা ও দ্রব্যসামগ্রী ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি উন্নত করা; এবং জ্ঞান বাড়ানো এবং গুজব ও ভুল ধারণা দূর করতে ঝুঁকি বিষয়ক তথ্য যোগাযোগ বার্তা প্রচার জোরদার করা।


অনলাইনে এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলার তার বক্তব্যে বলেন, “রমজান আমাদের এই সংকট মোকাবেলায় নিয়োজিত সামনের কাতারের কর্মীদের সম্পর্কে ভাবা এবং তাদের ধন্যবাদ জানানোর কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। তারা প্রতিদিন অসাধারণ সেবাকাজ করে যাচ্ছেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন স্বাস্থ্যসেবা কর্মী, পুলিশ, মুদি, ওষুধের দোকান এবং অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কাজ করা লোকেরা। আমি এর মধ্যে সাংবাদিকদেরও যোগ করবো। বিশেষ করে সঙ্কটের সময়ে যে কোনো প্রাণবন্ত গণতন্ত্রের যা প্রয়োজন আপনারা তা যোগান। তা হচ্ছে বস্তুনিষ্ঠ তথ্য, প্রকৃত ঘটনা এবং সত্য। সাংবাদিক, আলোকচিত্র সাংবাদিক এবং মিডিয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর কাজটি পালন করার সময় অনেক সময় ত্যাগ স্বীকারের ব্যাপার থাকে, যেমনটি বাংলাদেশেও ঘটে। আপনারা সবাই প্রকৃত নায়ক এবং আমাদের অন্তরস্থ কৃতজ্ঞতা প্রাপ্তির দাবীদার।“


বাংলাদেশে কোভিড-১৯ মোকাবেলার প্রস্তুতি ও কার্যক্রম বাস্তবায়নের লক্ষ্যে অনুদান প্রদানে যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বে অন্যতম প্রথম।


রাষ্ট্রদূত মিলার আরো বলেন, “যুক্তরাষ্ট্র সরকার ইউএসএআইডির মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যৌথভাবে সারাদেশের চিকিৎসকদের জন্য কোভিড-১৯ বিষয়ক একটি অনলাইন কোর্স চালু করছে। কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসা করার সময় যেসব সতর্কতার বিষয় মাথায় রাখা প্রয়োজন সে সম্পর্কে জানতে চিকিৎসকদের সহায়তা করবে এই কোর্সটি। কোভিড-১৯ মোকাবেলায় আমাদের সহায়তার মাধ্যমে বাংলাদেশের সকল মানুষের জন্য মানসম্পন্ন জীবনরক্ষাকারী স্বাস্থ্যসেবার সুযোগ নিশ্চিত করতে আমাদের দীর্ঘস্থায়ী অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত হয়েছে।”


অন্যদিকে কারিগরী কর্মী নিয়োগ ও প্রশিক্ষণ দানের মাধ্যমে দেশের পরীক্ষাগারগুলোর সক্ষমতা বৃদ্ধিতে ইউএসএআইডি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সাথে কাজ করছে।


কোভিড-১৯ আক্রান্তদের সনাক্তকরণ, রোগের আরো বিস্তার রোধে আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের খুঁজে বের করা এবং তথ্যভিত্তিক সিদ্ধান্তগ্রহণ জোরদার করতে সতর্ক পর্যবেক্ষণ পরিচালনার জন্য ইউএসএআইডি রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) সাথে কাজ করছে। তাছাড়া, সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধে জাতীয় নির্দেশিকা প্রণয়ন এবং কোভিড-১৯ ব্যবস্থাপনা এবং সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধের বিভিন্ন প্রেক্ষিত বিষয়ে ১,৯০০ স্বাস্থ্য পেশাজীবীকে প্রশিক্ষণ দানের জন্য যুক্তরাষ্ট্র সরকার স্বাস্থ্য অধিদফতরকে সহায়তা দিচ্ছে। প্রশিক্ষণার্থীরা কেন্দ্রীয়, বিভাগীয় ও জেলা সদরসহ সারাদেশের হাসপাতালগুলোতে কোভিড-১৯ পরীক্ষা ও চিকিৎসার জন্য নিযুক্তদের প্রতিনিধিত্ব করছেন। কোভিড-১৯ প্রতিরোধে নিত্য ব্যবহার্য দ্রব্যসামগ্রী ব্যবস্থাপনার জন্য ইলেকট্রনিক উপায়ে দ্রব্যসামগ্রী ব্যবস্থাপনা তথ্য পদ্ধতি (এলএমআইএস) প্রণয়নেও ইউএসএআইডি বাংলাদেশ সরকারকে সহায়তা দিয়েছে।


বিগত ৫০ বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) গবেষণা থেকে শুরু করে জনস্বাস্থ্য সম্পর্কিত বিভিন্ন ইস্যুতে বাংলাদেশের কারিগরি এবং বৈজ্ঞানিক সহযোগী হিসেবে কাজ করছে। ১৯৯৯ সাল থেকে সিডিসি বাংলাদেশ সরকারের জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থা প্রণয়ন এবং জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ তৈরির লক্ষ্যে বাংলাদেশে একজন মেডিকেল রোগতত্ত্ববিদ নিযুক্ত করার মাধ্যমে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং আইসিডিডিআরবিকে সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে। পাশাপাশি দেশের প্রতিটি জেলায় পর্যায়ক্রমে একজন করে রোগতত্ত্ববিদ নিয়োগ এবং পূর্ণাঙ্গ স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র যুক্ত করার লক্ষ্যে একটি প্রস্তাবনা প্রণয়নেও সিডিসি বাংলাদেশ সরকারকে সহায়তা দিচ্ছে।

  • সর্বশেষ - জাতীয়