ময়মনসিংহ, , ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭ অনলাইন সংস্করণ

শেরপুরে ব্রহ্মপুত্রের পানি বেড়ে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

শেরপুরে ব্রহ্মপুত্রের পানি বেড়ে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

শেরপুরে পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় সদর উপজেলার চরপক্ষীমারী ইউনিয়নের নদী তীরবর্তী কুলুরচর-বেপারীপাড়া গ্রামের শতাধিক বাড়িঘরে পানি প্রবেশ করেছে।


এ অবস্থায় প্রায় ৫০টি পরিবারের ২ শতাধিক মানুষ পরিবার-পরিজন, জিনিসপত্র ও ছাগলসহ ওই এলাকার পাশ্ববর্তী জামালপুর শহর রক্ষা বাঁধ এবং রাস্তার পাশে আশ্রয় নিয়েছে। শনিবার সকালে আরও কয়েকটি পরিবারকে গবাদি পশুসহ বাঁধের ওপর আসতে দেখা গেছে।


কুলুরচর-বেপারীপাড়া এলাকার ইউপি মেম্বার জাফর মিয়া বলেন, গত ১০ দিন ধরে পানি প্রবেশ করায় কুলুরচর-বেপারীপাড়া গ্রামের শতাধিক পরিবার ক্ষয়ক্ষতির মুখে পড়েছে। বাড়িঘরে পানিতে ডুবে যাওয়ার অনেকেই বাঁধের ওপর আশ্রয় নিয়েছে। তারা সেখানে মানবেতর অবস্থায় রয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর জন্য জরুরি খাদ্য ও ওষুধ সহায়তা দরকার।


এদিকে শেরপুর সদর উপজেলার কামারের চর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হাবিব জানান, ব্রহ্মপুত্র ও দশআনী নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে নদী তীরবর্তী ৬নং চর, ৭নং চর ও পয়স্তিরচর এলাকার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।


পানি উন্নয়ন বোর্ডের পানি পরিমাপক গোলাম মোস্তফা জানান, বন্যা আর উজান থেকে আসা ঢলে পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদীর পানি শেরপুর ব্রহ্মপুত্র সেতু পয়েন্টে গত কয়েকদিন ধরে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। শুক্রবার ভোর ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় ১১ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে তা এখনও বিপৎসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।


শেরপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফিরোজ আল মামুন জানান, কুলুরচর-বেপারীপাড়ার নিচু এলাকার কিছু পরিবারের বাড়ি-ঘরে পানি উঠেছে। ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্য-সহযোগিতা করার জন্য কিছু ত্রাণ সামগ্রী বরাদ্দ করে তা সুবিধাজনক সময়ে বিতরণ করার জন্য চরপক্ষীমারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে বলা হয়েছে।


  • সর্বশেষ - মহানগর