ময়মনসিংহ, , ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭ অনলাইন সংস্করণ

কেউ খোঁজ নেয়নি মৃত সন্তান প্রসব করা রুপার

কেউ খোঁজ নেয়নি মৃত সন্তান প্রসব করা রুপার

একদিন পার হয়ে গেলেও ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে সড়কের পাশে পড়ে থাকা রুপা আক্তারের (২৬) খোঁজ নেয়নি তার পরিবার। এ নিয়ে স্থানীয় প্রশাসন ও জনগণের মনে নানা প্রশ্নের জন্ম নিয়েছে। মৃত সন্তান প্রসব করা ওই নারী সুস্থ হলেই তার সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছে থানা পুলিশ।


বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) বেলা ১১টার দিকে মধুপুর আব্বাসিয়া ডিএস দাখিল মাদরাসার সামনে থেকে ঈশ্বরগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা উদ্ধার করে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন রুপাকে।


স্থানীয়দের বরাত দিয়ে ঈশ্বরগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস স্টেশন ইনচার্জ দেলোয়ার হোসেন জানান, ভোরে স্থানীয়রা ফজরের নামাজের সময় বের হয়ে ওই নারীকে সড়কের পড়ে পাশে থাকতে দেখে কয়েকজনের সহযোগিতায় তাকে পাশের একটি দোকানের বারান্দায় নিয়ে যান। এ সময় ওই নারী প্রসব যন্ত্রণায় ছটফট করছিলেন।


এই খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন ইউপি চেয়ারম্যান বদরুজ্জামান মামুন। পরে ফায়ার সার্ভিসকে বিষয়টি জানালে আমরা গিয়ে উদ্ধার করে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করি। প্রথমে ওই নারীকে মানসিক প্রতিবন্ধী মনে হলেও হাসপাতালে নেয়ার পর তিনি তার নাম ঠিকানা বলেন।


এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বদরুজ্জামান মামুন বলেন, গতকাল রাস্তার পাশে পড়ে থাকা ওই প্রসূতি বর্তমানে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। শেষ খবর নেয়া পর্যন্ত ওই নারীর কোনো আত্মীয়স্বজন এখনও খোঁজখবর নেয়নি।


ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. নুরুল হুদা জানান, বিকেল পৌনে চারটার দিকে রুপা আক্তার একটি মৃত কন্যা সন্তান জন্ম দিয়েছেন। রুপা আক্তারের প্রসবজনিত কিছু জটিলতা থাকায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত তার পরিবার থেকে কেউ যোগাযোগ করেনি বলেও জানান তিনি।


এ বিষয়ে ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি মোখলেছুর রহমান বলেন, হাসপাতালে ভর্তি করার পর থেকে এখন পর্যন্ত তার কোনো আত্মীয়-স্বজন খোঁজখবর নেয়নি। তিনি এখন চিকিৎসাধীন। কিছুটা সুস্থ হলেই তার সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।


তিনি আরও বলেন, অস্পষ্ট ভাষায় রুপা জানিয়েছেন তার বাবার বাড়ি গাজীপুর ও শ্বশুরবাড়ি শেরপুরে। স্বামী বাসের হেলপার বলে জানিয়েছেন তিনি।


এ বিষয়ে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকির হোসেন বলেন, ওই নারী শুধু নিজের নাম, বাবার বাড়ি, স্বামী কী করেন, এতটুকুই বলতে পারেন। অন্য কিছু বলতে পারেননি।

  • সর্বশেষ - ময়মনসিংহ অঞ্চল