ময়মনসিংহ, , ১৬ আশ্বিন ১৪২৭ অনলাইন সংস্করণ

একই পরিবারে ৫ প্রতিবন্ধী, বিপাকে নেত্রকোনার চান মিয়া

একই পরিবারে ৫ প্রতিবন্ধী, বিপাকে নেত্রকোনার চান মিয়া

নেত্রকোনা জেলার মদন উপজেলায় একই পরিবারের পাঁচজন প্রতিবন্ধী থাকায় বিপাকে পড়েছেন চান মিয়া। খেয়ে না খেয়ে দিনাতিপাত করছেন তারা।


উপজেলার কাইটাইল ইউনিয়নের শিবাশ্রম গ্রামের চান মিয়ার পরিবারের সদস্যরা হলেন- ভাই বাক প্রতিবন্ধী মোহাম্মদ নূর মিয়া, মোহাম্মদ হাশেম, মো. কাশেম, ভাতিজা রাব্বি মিয়া ও শারীরিক প্রতিবন্ধী ছেলে মো. রিফাত।


এদের তিনজনের বয়স পঞ্চাশোর্ধ্ব এবং দু'জনের বয়স কিছুটা কম। পৈতৃক সম্পত্তি বিক্রি করে কোনোভাবে দিনাতিপাত করলেও বর্তমানে তারা ভূমিহীন হয়ে খুবই কষ্টে আছেন। বর্ষা মৌসুমে হাওরে মাছ শিকার ও শুকনো মৌসুমে অন্যের জমিতে কৃষি কাজ করে এবং লোকজনের আর্থিক সহায়তায় চলে তাদের সংসার।


করোনাভাইরাসের কারণে তাদের সংসারের সংকট আরও বেড়ে গেছে। নিজের জমি না থাকায় নিম্নাঞ্চলে কৃষি জমিতে বসতঘর তুলে বসবাস করছিলেন তারা। সম্প্রতি বন্যা দেখা দেয়ায় বসতঘরে পানি প্রবেশ করে গৃহহীন হয়ে পড়েছে পরিবারটি।


পরিবারের অভিভাবক চান মিয়া জানান, আমাদের প্রতিবন্ধী সন্তান জন্ম হওয়ায় তাদের লালন-পালন করতে আমাদের সহায়-সম্পদ যা ছিল সব শেষ হয়ে গেছে। মানুষের সহায়তায় সংসার চললেও বর্তমানে করোনাভাইরাস ও বন্যা আমাদের জীবন লণ্ডভণ্ড করে দিয়েছে। বর্তমানে আমরা অনাহারে-অর্ধাহারে অন্যের বাড়িতে জীবনযাপন করছি। এ পর্যন্ত আমরা কোনো সরকারি সাহায্য পাইনি।


শুনেছি আমার ছেলে রিফাতের নামে একটি প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড মঞ্জুর হয়েছে। এতে আমাদের দুঃখ দূর হবে না। সরকারি সাহায্যের মাধ্যমে একটি খামার করে দিলে আমাদের জীবনের পরিবর্তন ঘটত। এ ব্যাপারে সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করছি।


সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান সাফায়াত উল্লাহ রয়েল জানান, এ পরিবারের নিকট থেকে রিফাত নামের একজনের আবেদন পেয়ে ভাতার ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। অন্য আরেকজনেরও ভাতার কার্ড আছে। যাদের নেই আবেদনের প্রেক্ষিতে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।


উপজেলা ভারপ্রাপ্ত সমাজসেবা কর্মকর্তা তৌফিক আহমেদ জানান, আমার বিষয়টি জানা ছিল না। তবে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যরাই ভাতাভোগীদের নামের তালিকা দিয়ে থাকে। যদি বাদ পড়ে থাকে আমরা তাদেরকে অন্তর্ভূক্ত করার চেষ্টা করব।


উপজেলা নির্বাহী অফিসার বুলবুল আহমেদ জানান, ৫ প্রতিবন্ধীর কথা শুনেছি। সরেজমিন পরিদর্শন করে বিধিমোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  • সর্বশেষ - মহানগর