ময়মনসিংহ, , ২০ ফাল্গুন ১৪২৭ অনলাইন সংস্করণ

মহাসড়কগুলোতে এখনও ১ হাজার ১৮৮ স্পিড ব্রেকার

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

মহাসড়কগুলোতে এখনও ১ হাজার ১৮৮ স্পিড ব্রেকার

ফাইল ছবি

দেশের মহাসড়কগুলো থেকে ৭৫৫টি স্পিড ব্রেকার সরানোর পর এখনও ১ হাজার ১৮৮টি স্পিড ব্রেকার রয়েছে। দেশের ১০টি জোনে এই স্পিড ব্রেকারগুলো রয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি স্পিড ব্রেকার ঢাকা জোনে। এ জোন থেকে ১৮টি সরিয়ে ফেলার পর এখন ১৮৮টি স্পিড ব্রেকার রয়েছে।


বৃহস্পতিবার (৩১ ডিসেম্বর) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এসব তথ্য জানানো হয়।


সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. আব্দুল মোক্তাদের স্বাক্ষরিত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, ময়মনসিংহ জোন থেকে ১৪২টি স্পিড ব্রেকার সরিয়ে ফেলার পর এখন রয়েছে ৮৫টি। কুমিল্লা জোন থেকে ৯৫টি সরিয়ে ফেলার পর এখন রয়েছে ১২৬টি, সিলেট জোনে ৩২টি সরানোর পর এখন রয়েছে ৬০টি। চট্টগ্রাম জোন থেকে ১২৫টি সরানোর পর এখন ২৪৮টি, বরিশাল জোন থেকে ৩০টি সরানোর পর এখন রয়েছে ৬২টি। খুলনা জোন থেকে ৫৬টি সরানোর পর এখন রয়েছে ১১১টি, রাজশাহী জোন থেকে ৬৪টি সরিয়ে আনা হয়েছে ৫৯টিতে। গোপালগঞ্জ জোন থেকে ৪৭টি কমানোর পর এখন রয়েছে ৯৯টি এবং রংপুর জোনে ১৪৬টি সরিয়ে ফেলার পর এখন রয়েছে ১৫০টি।


বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি মো. একাব্বর হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, সংসদীয় কমিটিতে দেশের মহাসড়কগুলোতে স্পিড ব্রেকার সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়। এছাড়া সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে স্থানীয় কিংবা রাজনৈতিক সকল প্রতিবন্ধকতা দূর করে সড়ক বা মহাসড়কে নসিমন, করিমন ও ইঞ্জিনচালিত রিকশা চলাচল বন্ধ করার সুপারিশ করা হয়।


বৈঠকে ধলেশ্বরী সেতুতে টোল আদায় সংক্রান্ত এর আগে গঠিত সংসদীয় সাব কমিটি বাতিল করা হয়। এর পরিবর্তে দেশের সকল সেতুতে টোল আদায়ে অনিয়ম ও দুর্নীতি বিষয়ক অভিযোগ খতিয়ে দেখতে আরেকটি সাব কমিটি গঠন করা হয়।


অন্যদিকে বৈঠকে বঙ্গবন্ধু সেতু এলাকায় অবস্থিত রিসোর্ট ইজারা প্রদান তথা বঙ্গবন্ধু সেতুর আনন্দ পার্ক, পিকনিক স্পট ও বাগান, জমি ও অন্যান্য অবকাঠামো ব্যবস্থাপনা বিষয়ে তদন্তপূর্বক একটি রিপোর্ট প্রদানের জন্য কমিটির সদস্য রেজওয়ান আহম্মদ তৌফিককে আহ্বায়ক করে দুই সদস্য বিশিষ্ট একটি সংসদীয় সাব কমিটি গঠন করা হয়।


পরবর্তী বৈঠকে বিভাগীয় কমিশনার, বিভাগীয় ডিআইজি এবং হাইওয়ে পুলিশ কর্তৃপক্ষকে উপস্থিত থাকার জন্য কমিটি সুপারিশ করে।


কমিটির সভাপতি মো. একাব্বর হোসেন ছাড়াও বৈঠকে কমিটির সদস্য সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের (ভার্চুয়ালভাবে), এনামুল হক, মো. আবু জাহির, রেজওয়ান আহম্মদ তৌফিক, মো. ছলিম উদ্দীন তরফদার, শেখ সালাহউদ্দিন, সৈয়দ আবু হোসেন এবং রাবেয়া আলীম অংশ নেন।


এছাড়া বৈঠকে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সচিব, বিআরটিএ ও বিআরটিসির চেয়ারম্যান, পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের পরিচালক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল প্রকল্পের পরিচালক, বিটিসিএ’র নির্বাহী পরিচালক, সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলীসহ সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

  • সর্বশেষ - জাতীয়