ময়মনসিংহ, , ৩ বৈশাখ ১৪২৮ অনলাইন সংস্করণ

মিশ্র তেল, আদা-হলুদ-মরিচ বাড়তি, নিম্নমুখী পেঁয়াজ-ছোলা-খেজুর

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

মিশ্র তেল, আদা-হলুদ-মরিচ বাড়তি, নিম্নমুখী পেঁয়াজ-ছোলা-খেজুর
গত এক সপ্তাহে রাজধানীর বাজারগুলোতে ময়দা, আদা, হলুদ, শুকনা মরিচের পাশাপাশি দাম বেড়েছে বোতলজাত সয়াবিন তেলের। বিপরীতে সরু চাল, খোলা সয়াবিন, পাম অয়েল, মসুর ডাল, পেঁয়াজ, ছোলা, আলু, রসুন, ব্রয়লার মুরগি ও খেজুরের দাম কমেছে। সরকারি প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে এসেছে।

রাজধানীর শাহজাহানপুর, মালিবাগ বাজার, কারওয়ান বাজার, বাদামতলী বাজার, সূত্রাপুর বাজার, শ্যামবাজার, কচুক্ষেত বাজার, মৌলভীবাজার, মহাখালী বাজার, উত্তরা আজমপুর বাজার, রহমতগঞ্জ বাজার, রামপুরা ও মিরপুর-১ নম্বর বাজারের পণ্যের দামের তথ্য নিয়ে এ প্রতিবেদন তৈরি করেছে টিসিবি।


প্রতিষ্ঠানটির তথ্য অনুযায়ী, বোতলের পাঁচ লিটার সয়াবিন তেলের দাম গত এক সপ্তাহে বেড়েছে ১ দশমিক ৬০ শতাংশ। ২৩ মার্চ এই দাম বাড়ে। এতে বোতলের পাঁচ লিটার সয়াবিন তেল এখন বিক্রি হচ্ছে ৬২০ থেকে ৬৫০ টাকা।

গত ২৮ মার্চ লুজ সয়াবিন তেল ও লুজ পাম অয়েলের এবং ২৯ মার্চ সুপার পাম অয়েলের দাম কমেছে বলে টিসিবির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির তথ্য অনুযায়ী, সপ্তাহের ব্যবধানে খোলা সয়াবিন তেলের দাম ৩ দশমিক ২৭ শতাংশ কমে ১১৭ থেকে ১২০ টাকা লিটার বিক্রি হচ্ছে। লুজ পাম অয়েলের দাম ২ দশমিক ৩০ শতাংশ কমে ১০৫ থেকে ১০৭ এবং সুপার পাম অয়েলের দাম ১ দশমিক ৩৩ শতাংশ কমে ১১০ থেকে ১১২ টাকা লিটার বিক্রি হচ্ছে।

টিসিবি বলছে, সপ্তাহের ব্যবধানে প্যাকেট ময়দার দাম ৩ দশমিক ৫৩ শতাংশ বেড়ে কেজি ৪৩ থেকে ৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। খোলা ময়দার দাম বেড়েছে ২ দশমিক ৮৬ শতাংশ। এতে এই পণ্যটির কেজি এখন বিক্রি হচ্ছে ৩৪ থেকে ৩৮ টাকা। ২৯ মার্চ খোলা ও প্যাকেট উভয় ধরনের ময়দার দাম বেড়েছে।

দাম বাড়ার তালিকায় থাকা আমদানি করা শুকনা মরিচের দাম ৩ শতাংশ বেড়ে এখন কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৩৫ থেকে ২৮০ টাকা। ৫ দশমিক ৭১ শতাংশ বেড়ে দেশি হলুদ ১৫০ থেকে ২২০ এবং আমদানি করা হলুদের দাম ৬ দশমিক ৪৫ শতাংশ বেড়ে ১৫০ থেকে ১৮০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।


হলুদের মতো আমদানি করা ও দেশি উভয় ধরনের আদার দাম গত এক সপ্তাহে বেড়েছে। দেশি আদার দাম ১১ দশমিক ৭৬ শতাংশ বেড়ে কেজি বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ১২০ টাকা। আমদানি করা আদাও ৭০ থেকে ১২০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। এতে সপ্তাহের ব্যবধানে দাম বেড়েছে ৫ দশমিক ৫৬ শতাংশ।

টিসিবির প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, সপ্তাহের ব্যবধানে এক কেজি ডিপ্লোমা গুঁড়া দুধের দাম দশমিক ৮১ শতাংশ বেড়ে ৬২০ থেকে ৬৩০ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে। মার্কস গুঁড়া দুধ এক কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫৫০ থেকে ৫৯০ টাকা। এতে সপ্তাহের ব্যবধানে দাম বেড়েছে দশমিক ৮৮ শতাংশ। ডানো গুঁড়া দুধের দাম দশমিক ৮১ শতাংশ কমে ৬১০ থেকে ৬২০ এবং ফ্রেশ গুঁড়া দুধের দাম ১ দশমিক ৭২ শতাংশ কমে কেজি ৫৪০ থেকে ৬০০ টাকা বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে রোজার সময় কাছাকাছি চলে এলেও রোজায় বেশি ব্যবহৃত হওয়া ছোলা, খেজুর, পেঁয়াজের দাম কমেছে বলে টিসিবির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির তথ্য অনুযায়ী, সপ্তাহের ব্যবধানে দেশি পেঁয়াজের দাম ১০ দশমিক ৬৭ শতাংশ কমে কেজি ৩২ থেকে ৩৫ টাকার মধ্যে চলে এসেছে। আমদানি করা পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৮ থেকে ৩০ টাকা। এতে সপ্তাহের ব্যবধানে দাম কমেছে ১০ দশমিক ৭৭ শতাংশ।

সরু চাল মিনিকেট ও নাজিরের দাম সপ্তাহের ব্যবধানে ২ দশমিক ৪০ শতাংশ কমে কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫৮ থেকে ৬৪ টাকা। মসুর ডালের দাম এক সপ্তাহে কমেছে ৫ দশমিক ৮৮ শতাংশ। এতে মাঝারি দানার মসুর ডালের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৭৫ থেকে ৮৫ টাকা। ছোলার দাম ৬ দশমিক ৬৭ শতাংশ কমে কেজি ৬৫ থেকে ৭৫ টাকার মধ্যে চলে এসেছে বলে জানিয়েছে টিসিবি।

সরকারি এই প্রতিষ্ঠানটির তথ্য অনুযায়ী, গত এক সপ্তাহে আলুর দাম ৫ দশমিক ৫৬ শতাংশ কমেছে। এতে এখন এক কেজি আলু বিক্রি হচ্ছে ১৬ থেকে ১৮ টাকা। দেশি রসুনের দাম ৯ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ কমে কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৬০ টাকা। আমদানি করা রসুনের দাম ৮ দশমিক ৭০ শতাংশ কমে কেজি ৯০ থেকে ১২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

গত এক সপ্তাহে সাধারণ মানের খেজুরের দাম ৩৫ দশমিক ৩৮ শতাংশ কমে কেজি বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ৩০০ টাকা। ব্রয়লার মুরগির দামও গত এক সপ্তাহে কমেছে বলে জানিয়েছে টিসিবি। সপ্তাহের ব্যবধানে ১ দশমিক ৫৯ শতাংশ কমে ব্রয়লার মুরগির কেজি এখন ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা বিক্রি হচ্ছে।
  • সর্বশেষ - অর্থ-বাণিজ্য