ময়মনসিংহ, , ১২ মাঘ ১৪২৬ অনলাইন সংস্করণ

সরকার মুক্তিযোদ্ধাকে রাজাকার বানাচ্ছে: ফখরুল

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

সরকার মুক্তিযোদ্ধাকে রাজাকার বানাচ্ছে: ফখরুল
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।ছবি: সংগৃহীত

বর্তমান সরকার নিজেরাই মুক্তিযোদ্ধাকে রাজাকার আর রাজাকারকে মুক্তিযোদ্ধা বানাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে গণতন্ত্র কখনোই মুক্তি পাবে না। তাকে মুক্ত করতে হলে এই সরকারের বিরুদ্ধে তীব্র গণআন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।’

বৃহস্পতিবার বিকালে নরসিংদী শহরের সিএন্ডবি রোডস্থ কাজী সুপার মার্কেটে একটি কমিউনিটি সেন্টারে প্রয়াত আবদুল মোমেন খান স্মৃতি সংসদ আয়োজিত স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বর্তমান সরকার ১৯৭২ সাল থেকে ৭৫ সাল পর্যন্ত লুটপাট করে এদেশকে শোষণ করেছে এবং একইভাবে পুনরায় ক্ষমতায় আসার পর ক্ষমতাকে কুক্ষিগত করার লক্ষ্যে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে জেলে আটকে রেখেছে। খালেদা জিয়াকে বাহিরে রাখলে তারা ভোট চুরি করে বার বার ক্ষমতায় আসতে পারতো না।খালেদা জিয়া এবং গণতন্ত্র একে অপরের পরিপূরক। তাই খালেদা জিয়াকে আটকে রাখাই তাদের মূল উদ্দেশ্য।’

বর্তমান সরকার ভারতের দালালি করছে মন্তব্য করে তিনি আরও বলেন, ‘সরকার আমাদের দেশের ন্যায্য হিস্যা তিস্তার পানির সুসম বণ্টন চায় না। তারা চায় শুধু ভারতকে খুশি রাখতে।’ তিনি খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার আহ্বান জানান।

ফখরুল বলেন, ‘চাল ডাল তেল পিয়াজসহ দেশে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম অত্যাধিক বেড়ে গেছে। ফলে ধনী আরও ধনী হচ্ছে, গরীব আরও গরীব হচ্ছে।’ এসময় তিনি গণতন্ত্র উদ্ধারে ঐক্যবদ্ধ গণআন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- নরসিংদী জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মনজুর এলাহী, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মেজবাহ উদ্দিন ভূইয়া ইরান, জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি সুলতান উদ্দিন মোল্লা, জেলা মুক্তিযোদ্ধাবিষয়ক সম্পাদক লে. কর্নেল (অব:) জয়নুল আবেদীন, জামাল আহমেদ চৌধুরী, জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আকরামুল ইসলাম মিন্টু, সাবেক ছাত্র নেতা ফেরদৌস আহমেদ খোকন, আবদুল মোমেন খান স্মৃতি সংসদের আহ্বায়ক বাবুল সরকার ও সাধারণ সম্পাদক সারোয়ার হোসেন মৃধা প্রমুখ।

তবে সভায় নরসিংদী জেলা বিএনপির সভাপতি, সাবেক এমপি, যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুর কবির খোকন এবং জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন মাস্টারসহ কমিটির অধিকাংশ নেতা উপস্থিত ছিলেন না।