, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ অনলাইন সংস্করণ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ময়মনসিংহে যাচ্ছেন ৭৩ প্রকল্প উদ্বোধন ও ৩০ টির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

  শাহ মোহাম্মদ রনি

  প্রকাশ : 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ময়মনসিংহে যাচ্ছেন ৭৩ প্রকল্প উদ্বোধন ও ৩০ টির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

৪ বছর ২ মাস পর আজ শনিবার দুপুরে ময়মনসিংহে আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিকাল সাড়ে ৩ টায় তিনি ঐতিহাসিক সার্কিট হাউজ মাঠে আওয়ামী লীগ আয়োজিত বিভাগীয় জনসভায় ভাষণ দিবেন। এর আগে তিনি জনসভাস্থলের কাছেই ৭৩টি প্রকল্প  উদ্বোধন ও ৩০টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। এদিকে শুক্রবার সন্ধ্যার পর আকস্মিক জনসভাস্থল পরিদর্শন করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ও কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক সহ কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের একদল নেতা। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে ঘিরে ময়মনসিংহ বিভাগের সর্বত্র চলছে উৎসবের আমেজ। শতাধিক বিলবোর্ডে বাহারি ডিজাইনের পিভিসি, ব্যানার, ফেস্টুন, পোস্টার ও দৃষ্টিনন্দন তোরণে ছেয়ে গেছে নগরীর প্রধান সড়ক, সড়কদ্বীপ এবং অলিগলি। আজ সার্কিট হাউজ মাঠে স্মরণকালের সর্ববৃহৎ জনসভা হবে বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের নেতারা। সূত্র মতে, প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের অপেক্ষায় থাকা ৭৩টি প্রকল্পের মধ্যে ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার সংলগ্ন স্থানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মুরাল নির্মাণ, ত্রিশাল উপজেলায় ১ হাজার আসন বিশিষ্ট অডিটোরিয়াম কাম কম্পিউটার সেন্টার নির্মাণ, ৩২টি পৌরসভায় পানি সরবরাহ ও মানববর্জ্য ব্যবস্থাপনাসহ এনভায়রনমেন্টাল স্যানিটেশন প্রকল্প, ২১টি বিদ্যালয় ও কলেজের ৪ তলা বিশিষ্ট একাডেমিক ভবন নির্মাণ, ৫টি ব্রিজ, ২টি স্মৃতিসৌধ, ৩টি বাজার ও ৬টি ভবন নির্মাণ। ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের অপেক্ষায় থাকা ৩০টি প্রকল্পের মধ্যে ফুলবাড়িয়া উপজেলার পুরাতন বাসস্ট্যান্ডে কর্মজীবী মহিলা হোস্টেল কাম বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণ, সদরের ছত্রপুর সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপন প্রকল্পের আওতায় নির্মাণাধীন ১০তলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ, আনন্দ মোহন সরকারি কলেজে নির্মাণাধীন ৫০০ শয্যা বিশিষ্ট ৫ তলা হোস্টেল ভবন নির্মাণ, ব্রহ্মপুত্র নদের উপর ৩টি ব্রিজ অন্যতম।


এছাড়াও চতুর্থ স্বাস্থ্য জনসংখ্যা ও পুষ্টি সেক্টর কর্মসূচির ফিজিক্যাল ফ্যাসিলিটিজ ডেভেলপমেন্ট শীর্ষক অপারেশন প্লানের আওতায় ১০ তলা ভিত বিশিষ্ট ৬ তলা বার্ণ ইউনিট নির্মাণ, বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন সচিবালয়ের ৭টি আঞ্চলিক কার্যালয় প্রতিষ্ঠাসহ সক্ষমতা বৃদ্ধিকরণ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ৪ তলা ভিত বিশিষ্ট ৩ তলা ময়মনসিংহ আঞ্চলিক কার্যালয় ও মাল্টিপারপাস হল ইত্যাদি। সূত্র মতে, এর আগে ২০১৫ সালের ১৩ অক্টোবর ময়মনসিংহ বিভাগ ঘোষণার পর ২০১৮ সালের ২ নভেম্বর সার্কিট হাউজ মাঠের জনসভায় ১০৩টি প্রকল্পের উদ্বোধন ও ৯৩টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এদিকে প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে ঘিরে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওেয়া হয়েছে ময়মনসিংহ নগরীকে। স্তরে স্তরে নিরাপত্তায় চলছে র‌্যাব ও পুলিশসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কঠোর নজরদারি। জনসভাস্থলসহ আশপাশের এলাকায় পুলিশের পক্ষ থেকে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। নিয়োজিত রয়েছে ৩ হাজারের বেশি পুলিশ। প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানিয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা পিভিসি, ব্যানার, ফেস্টুন, পোস্টার ও তোরণে প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। আজ শনিবার ঐতিহাসিক সার্কিট হাউজ মাঠে আওয়ামী লীগের বিভাগীয় জনসভায় কমপক্ষে ১২ লাখ লোক সমাগম ঘটবে বলে প্রত্যাশা নেতা-কর্মীদের। বসে ছিলেন না দলটির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরাও। দিনরাত পরিশ্রম করেছেন প্রিয় নেত্রীকে বরণ করে নেওয়ার জন্য। প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষ্যে আলাদা আলাদা বর্ধিত সভা করেছে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। আওয়ামী লীগের উদ্যোগে নগরীর প্রতিটি এলাকায় দিনরাত চলেছে মাইকিং।


মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মসিক মেয়র মোঃ ইকরামুল হক টিটু সাংবাদিকদের বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ময়মনসিংহবাসীর জন্য যা চিন্তা করেছিলেন; আমার মনে হয় তার চেয়ে অনেক বেশি আমাদের দিয়েছেন। দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা বিভাগ, সিটি কর্পোরেশন, শিক্ষা বোর্ড, স্বাস্থ্যসেবা অবকাঠামো উন্নয়ন, নদী খননসহ বিভিন্ন বিষয়ে আমরা যখন দাবি তুলেছি তার সব কিছুই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের উপহার দিয়েছেন। এ কৃতজ্ঞতা থেকেই দলীয় সভানেত্রীকে স্বাগত জানাতে আমরা সর্বোচ্চটুকু করছি। আশা করছি জনসভায় ১০ থেকে ১২ লাখ লোকের সমাগম ঘটবে। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে নেতা-কর্মীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ দেখা দিয়েছে। নেতা-কর্মীরা জনসভা সফল করতে দিনরাত কাজ করছেন। প্রতিটি ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড থেকে নেতা-কর্মীরা মিছিল নিয়ে জনসভায় যোগ দেবেন। মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোহিত উর রহমান শান্ত বলেছেন, বিগত সময়ে আমরা ময়মনসিংহবাসী প্রধানমন্ত্রীর কাছে কিছু চাইনি। নেত্রী যা অনুধাবন করেছেন আমাদের তাই দিয়েছেন। আমরা তাতেই খুশি। এবারও চাওয়া-পাওয়ার কিছু নেই। নেত্রী যা দিবেন আমরা তাতেই খুশি থাকব।


  • সর্বশেষ - জাতীয়