, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ অনলাইন সংস্করণ

মুক্তিযোদ্ধাদের যথাযথ সম্মান করার আহ্বান জানিয়েছেন মসিক মেয়র ইকরামুল হক টিটু

  শাহ মোহাম্মদ রনি

  প্রকাশ : 

মুক্তিযোদ্ধাদের যথাযথ সম্মান করার আহ্বান জানিয়েছেন মসিক মেয়র ইকরামুল হক টিটু

স্বাধীনতার সূর্য সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের যথাযথ সম্মান করার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আহবান জানিয়েছেন ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ ইকরামুল হক টিটু। তিনি বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। তারা আমাদের অবস্থান এবং সকল সাফল্যের দাবিদার। মুক্তিযোদ্ধারা যদি রক্ত দিয়ে দেশ স্বাধীন না করতেন আমরা আজকের বাংলাদেশ পেতাম না। আমাদের তৃতীয় শ্রেণীর নাগরিক হয়ে এদেশে বসবাস করতে হতো। মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ, দায়িত্ববোধ ও কৃতজ্ঞতাবোধ থেকেই আমরা প্রতি বছর সংবর্ধনার আয়োজন করে থাকি। ২৭ মার্চ সোমবার দুপুরে ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবার ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, আজ ৮৯৯ জন শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবার ও বীর মুক্তিযোদ্ধাকে সংবর্ধনা প্রদান করা হচ্ছে। ময়মনসিংহ নগরীতে বসবাস করা মুক্তিযোদ্ধাদের একটি হোল্ডিং ট্যাক্স ও পানির বিল মওকুফ করে দিয়েছি। এর ধারাবাহিকতায় আজ ১৮০ জনকে কর মওকুফ সনদ প্রদান করা হচ্ছে। বিনা মূল্যে মুক্তিযোদ্ধাদের দ্বিতীয় তলা পর্যন্ত ভবনের নকশা অনুমোদন করে দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া নগরীর মুক্তিযোদ্ধাদের সাবমার্সিবল স্থাপনের ফি মওকুফ, ভাষা সৈনিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামে সড়কের নাম এবং বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আলাদা কবরস্থান নির্মাণের ঘোষণা দেন মেয়র মোঃ ইকরামুল হক টিটু।


মেয়র মোঃ ইকরামুল হক টিটু বলেন, আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশ পরিচালনা করছে বলেই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আওয়ামী লীগকে আবারও রাষ্ট্র ক্ষমতায় আনতে হবে। এ জন্য ঐক্যবদ্ধভাবে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। তিনি বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অবদান ও আত্মত্যাগের কথা আমরা পরবর্তী প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দিতে চাই। মুক্তিযুদ্ধে নিজের অভিজ্ঞতা, ইতিহাস, ছবি ইত্যাদি সিটি কর্পোরেশনে পৌঁছানোর জন্য মহানগরীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি তিনি অনুরোধ জানান। এ সব তথ্য উপাত্ত নিয়ে একটি সংকলন প্রকাশ করা হবে বলে তিনি জানান। মসিকের কাউন্সিলর ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণ বিষয়ক কমিটির সভাপতি মোঃ সিরাজুল ইসলাম দৈনিক জাগ্রত বাংলা’কে বলেন, মোঃ ইকরামুল হক টিটু বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া ময়মনসিংহ পৌরসভার চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই অব্যাহতভাবে শহীদ পরিবার ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা দিয়ে নতুন মাত্রা সৃষ্টি করেছেন। ময়মনসিংহ পৌরসভা এর আগেও মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা দিয়ে আসছিলো। কিন্তু বর্তমান মেয়রের আমলে সংবর্ধনা সিটি কর্পোরেশনের ইতিহাসে আরেকটি রেকর্ড এবং বিরল দৃষ্টান্ত। এ উদ্যোগ স্বাধীনতার সূর্য সন্তানদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানানোর পাশাপাশি শহীদ পরিবার ও বীর মুক্তিযোদ্ধারে অন্যরকম স্বীকৃতি দেওয়ার সামিল।


সোমবার ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের সংবর্ধনায় উৎফুল্ল হয়ে ওঠেন স্বাধীনতার সূর্য সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধারা। এ সময় পুরো অডিটোরিয়ামে অন্যরকম দৃশ্যের সৃষ্টি হয়। সবাই বীর মুক্তিযোদ্ধা। বহু দিন পর দেখা। একে অপরকে জড়িয়ে ধরে কুশল বিনিময়। সব মিলিয়ে অনেকটাই বিজয় উল্লাস। ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন ৮৯৯ জন শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবার ও বীর মুক্তিযোদ্ধাকে সংবর্ধনা দেয়। করোনা পরিস্থিতির কারণে ২ বছর বাদ দিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানিয়ে দীর্ঘ ১১ বছর ধরে ভিন্ন আঙ্গিকে সংবর্ধনা দিয়ে আসছে বিলুপ্ত পৌরসভা ও বর্তমান সিটি কর্পোরেশন। সম্মান ও শ্রদ্ধার মধ্য দিয়ে বিপুল সংখ্যক মুক্তিযোদ্ধাকে দেওয়া সংবর্ধনা ইতিহাসে বারবার রেকর্ড সৃষ্টি করছে। আমন্ত্রিত অতিথি, গণ্যমান্য, রাজনৈতিক, সামাজিক ব্যক্তিসহ উপস্থিত সবাই মুগ্ধ মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি এ মূল্যায়নে। সংবর্ধিত শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবার ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে উপহার সামগ্রী বিতরণ করা হয়। সংবর্ধিত বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম সোমবার রাতে দৈনিক জাগ্রত বাংলা’কে বলেন, ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোঃ ইকরামুল হক টিটু এ পর্যন্ত মুক্তিযোদ্ধাদের যতটুকু সম্মান দিয়েছেন তা বিরল। তার এ অবদান কোনো দিনই ভুলার নয়। তিনি আমাদের হৃদয়ে ঠাঁই করে নিয়েছেন। আমরা মুক্তিযোদ্ধারা জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত তাকে মনে রাখবো।


মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে সিটি কর্পোরেশন এলাকায় বসবাস করা শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবার ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সোমবার টাউন হল প্রাঙ্গণের অ্যাডভোকেট তারেক স্মৃতি অডিটোরিয়ামে সংবর্ধনা প্রদান প্রদান হয়। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ইউসুফ আলী, সচিব অন্নপূর্ণা দেবনাথ, প্যানেল মেয়র-৩ সামীমা আক্তার, ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ সিরাজুল ইসলাম, মহিলা কাউন্সিলর রোকসানা শিরীন ও সেলিনা আক্তার, বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলর, মসিকের বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা, ময়মনসিংহের পিপি মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভেকেট কবির উদ্দিন ভূঁইয়া, সাবেক জেলা কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা সেলিম সাজ্জাদ ও মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আব্দুর রব, নাগরিক আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার নূরুল আমিন কালাম, সেক্টর কমান্ডার ফোরামের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ রফিকুজ্জামান, মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক সদস্য সচিব সেলিম সরকার রবার্ট, সাবেক উপজেলা কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা আবুল কামাম আজাদ ও মোঃ খালেক শিকদার, রেলওয়ে প্রাতিষ্ঠানিক কমান্ডার মোঃ মোজাম্মেল হক প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনার বিষয়ে বিশিষ্টজনরা বলেন, ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের এ উদ্যোগ জাতির অহংকার একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের বীর সেনানীদের বিরল সম্মাননা জানানো। জীবনের শেষ সময়ে এ সংবর্ধনা মুক্তিযোদ্ধারা অনেকেই নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখবেন।


  • সর্বশেষ - আলোচিত খবর