, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ-কুয়েতের বন্ধুত্বের ৫০তম বার্ষিকী উদযাপন

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

  প্রকাশ : 

বাংলাদেশ-কুয়েতের বন্ধুত্বের ৫০তম বার্ষিকী উদযাপন

নতুন উত্তেজনায় কিছুটা ভাটা পড়েছে। মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতি খানিকটা শান্ত। তবে ভেতরে ভেতরে উত্তেজনা চলছেই। বিবদমান দুই পক্ষ ভেতরে ভেতরে শক্তি সঞ্চার করছে। ইরান চাইছে সরাসরি সংঘাতে না গিয়ে কৌশলে ইসরায়েলকে কাবু করতে। তাই তেহরান আমেরিকা বিরোধী বৈশ্বিক শক্তিগুলোর সাথে জোট বাঁধছে। এবার রাশিয়ার সাথে একটি বিশেষ সমঝোতা স্মারকে সই করেছে ইরান।

নিরাপত্তা খাতে সম্পর্ক জোরদার করতেই এই চুক্তি করা হয়েছে। ইরানের সুপ্রিম ন্যাশনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের সেক্রেটারি আলি আকবার আহমাদিয়ান ও তার রাশিয়ার কাউন্টারপার্ট নিকোলাই পাত্রুশেভ এই সমঝোতা স্মারকে সই করেন। সেন্ট পিটার্সবার্গে আয়োজিত ১২তম আন্তার্জাতিক হাই রিপ্রেজেনট্যাটিভস ফর সিকিউরিটি বৈঠকে এ বিষয়ে আলোচনা করা হয়।

এই চুক্তির আওতায় তেহরান ও মস্কো নিরাপত্তা ইস্যুতে অনেক কৌশলগত বিষয়ে একে অপরকে সহযোগিতা করবে। গত কয়েক বছর ধরেই ইরান ও রাশিয়া প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তার মতো নানা বিষয়ে একসাথে কাজ করছে। আর দু'টি দেশই পশ্চিমাদের সব ধরনের নিষেধাজ্ঞা এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে।বাংলাদেশ দূতাবাস, কুয়েত বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস এবং কুয়েতের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্কের ৫০তম বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে স্থানীয় ক্রাউন প্লাজা হোটেলে একটি সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। গত মঙ্গলবার আয়োজিত অনুষ্ঠানে কুয়েতে নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, কূটনৈতিক মিশনের সদস্য, কুয়েতের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, বাংলাদেশ মিলিটারি কন্টিনজেন্ট টু কুয়েতের সদস্যবৃন্দ, স্থানীয় এবং প্রবাসী সাংবাদিকরা এবং বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যসহ মোট ৪০০ জনেরও বেশি অতিথি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুয়েতের সমাজবিষয়ক, পরিবার ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রী এবং মন্ত্রিপরিষদ বিষয়ক ভারপ্রাপ্ত প্রতিমন্ত্রী শেখ ফিরাস সৌদ আল-মালিক আল-সাবাহ। কুয়েতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল (অব.) মো. আশিকুজ্জামান এবং দূতাবাসের অন্যান্য কর্মকর্তা ও তাদের স্ত্রীরা সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আগত অতিথিদের স্বাগত জানান।

বাংলাদেশ এবং কুয়েতের জাতীয় সংগীত বাজানোর মধ্য দিয়ে বর্ণাঢ্য সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শুরু হয়। এরপর রাষ্ট্রদূত তার বক্তব্যে প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার জন্য কুয়েতের সমাজবিষয়ক, পরিবার ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রী এবং মন্ত্রিপরিষদ বিষয়ক ভারপ্রাপ্ত প্রতিমন্ত্রী শেখ ফিরাস সৌদ আল-মালিক আল-সাবাহকে ধন্যবাদ জানান।

তিনি কুয়েতে বসবাসরত প্রবাসী বংলাদেশিদের প্রতি অব্যাহত সমর্থনের জন্য কুয়েতের আমির শেখ মিশাল আল-আহমদ আল-জাবের আল-সাবাহ, কুয়েত সরকার এবং কুয়েতের জনগণের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যের শেষে সংক্ষিপ্ত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আগত দর্শকদের আনন্দিত করে। উল্লেখ্য, একই দিনে বাংলাদেশ-কুয়েতের কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর (সুবর্ণজয়ন্তী) উদযাপনের অংশ হিসেবে বাংলাদেশ দূতাবাস কুয়েতের প্রসিদ্ধ পত্রিকা ‘দৈনিক আরব টাইমস’ এ একটি বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করা হয়।

  • সর্বশেষ - আন্তর্জাতিক