ময়মনসিংহ, , ২৮ বৈশাখ ১৪২৮ অনলাইন সংস্করণ

রিমান্ড শেষে আবারও কারাগারে মেয়র রফিক

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

রিমান্ড শেষে আবারও কারাগারে মেয়র রফিক

ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান শুভ্র হত্যা মামলার আসামি পৌর মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলাম রফিককে দু’দিনের রিমান্ড শেষে আবারও কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।


সৈয়দ রফিকুল ইসলাম গৌরীপুর পৌরসভার টানা দুইবারের মেয়র ও গৌরীপুর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি।


শনিবার (১৯ ডিসেম্বর) দুপুরে ময়মনসিংহ চিফ জুডিসিয়াল আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট মাহবুবা আক্তারের নির্দেশে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।


বিষয়টি নিশ্চিত করে ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি শাহ কামাল আকন্দ বলেন, গৌরীপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান শুভ্র হত্যা মামলার আসামি পৌর মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলাম রফিকের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুই দিন রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। দুই দিন জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে আবারও আদালতের নির্দেশে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।


মাসুদুর রহমান শুভ্র হত্যা হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়ে রিমান্ডে কিছু স্বীকার করেছেন কিনা জানতে চাইলে ওসি শাহ কামাল বলেন, হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়ে কিছু স্বীকার করেননি। তবে জিজ্ঞাসাবাদে যেসব তথ্য পাওয়া গেছে তার বিশ্লেষণ করা হচ্ছে।


এর আগে বৃহস্পতিবার (১৭ ডিসেস্বর) বাদীপক্ষের আইনজীবী শুভ্র হত্যা মামলায় মেয়র রফিকের পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আদালত তার দু’দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। পরে ওই দিনই রিমান্ডে নেয়া হয় তাকে।


গত ১৪ ডিসেম্বর (সোমবার) নিম্ন আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করলে বিচারক আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এর আগে শুভ্র হত্যা মামলায় উচ্চ আদালত থেকে ছয় সপ্তাহের জামিন নিয়েছিলেন মেয়র রফিক।


উল্লেখ্য, গত ১৭ অক্টোবর রাত সাড়ে ১০টার দিকে গৌরীপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পল্লী উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমান শুভ্রকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ফেলে রেখে যায় দুর্বৃত্তরা। পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।


এ ঘটনায় গত ১৯ অক্টোবর ১৪ জনের নাম উল্লেখসহ মোট ২২ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে হত্যা মামলা করেন নিহতের ছোট ভাই আবিদুর রহমান প্রান্ত।


মামলার আসামিরা হলেন- উপজেলা বিএনপির একাংশের যুগ্ম আহ্বায়ক রিয়াদুজ্জামান রিয়াদ, তার ছোট ভাই ছাত্রদল কর্মী কার্জন, স্থানীয় বাসিন্দা সাকিব আহমেদ রেজা, মোজাম্মেল, খাইরুল, রিফাত, হানিফ, জাহাঙ্গীর আলম, মজিবুর রহমান, সুমন, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌরসভার মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলাম, জেলা যুবদল নেতা সৈয়দ তৌফিকুল ইসলাম, সৈয়দ মাজাহারুল ইসলাম জুয়েল ও রাসেল মিয়া।


মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলামের পরিকল্পনায় আসামিরা এ হত্যাকাণ্ড ঘটান। ২০১৭ সালের ৫ এপ্রিল সৈয়দ রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে থানায় জিডি করেছিলেন নিহত মাসুদুর রহমান শুভ্র।


এ মামলার প্রধান আসামি চেয়ারম্যান রিয়াদুজ্জামান রিয়াদকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তিনি গৌরীপুর উপজেলার মইলাকান্দা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান।


মাসুদুর রহমান শুভ্র হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় গৌরীপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ সৈয়দ রফিকুল ইসলামকে বহিষ্কারের জন্য দলের কেন্দ্রীয় দফতরে সুপারিশ পাঠালেও এখন পর্যন্ত বহিষ্কার আদেশ কার্যকর হয়নি।

  • সর্বশেষ - মহানগর