ময়মনসিংহ, , ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ অনলাইন সংস্করণ

সর্বাত্মক লকডাউনের ঘোষণা আসছে আজ

  নিজস্ব প্রতিবেদন

  প্রকাশ : 

সর্বাত্মক লকডাউনের ঘোষণা আসছে আজ

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের লাগাম টানতে আগামী বুধবার থেকে ‘সর্বাত্মক লকডাউনে’ যাচ্ছে সরকার। ‘লকডাউন’ সফল করতে কাজ শুরু করেছে সরকার। এরই মধ্যে গতবারের মতোই ৬৪ জেলায় ৬৪ জন সচিবকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। দায়িত্বপ্রাপ্তরা নিজ নিজ জেলার রাজনৈতিক নেতা ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করে নির্দেশনা বাস্তবায়নে কাজ করবেন।


আজ রবিবার (১১ এপ্রিল) মন্ত্রিপরিষদসচিবের নেতৃত্বে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকের পর ‘লকডাউনের’ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসার কথা রয়েছে। সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হলে সেটি করবে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। সেটিও জানা যাবে আজ।


এদিকে ‘লকডাউনের’ সময় শুধু জরুরি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ছাড়া দেশের সব সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। হাসপাতাল, গণমাধ্যম, ফায়ার সার্ভিস, মানুষ ও প্রাণীর খাদ্যপণ্য সরবরাহকারী যানবাহনের মতো বিষয়গুলো নিষেধাজ্ঞার বাইরে রাখা হবে। কাঁচাবাজার ও নিত্যপণ্যের দোকান নির্দিষ্ট সময়ের জন্য খোলা থাকবে। ওষুধের দোকানও খোলা রাখা যাবে। ব্যাংকও নির্দিষ্ট সময় খোলা রাখার নির্দেশনা আসতে পারে।


মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, আজ বিকেল ৩টায় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিবের সভাপতিত্বে উচ্চ পর্যায়ের একটি ভার্চুয়াল বৈঠক হবে। বৈঠকে সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তারা ‘লকডাউনের’ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে সুনির্দিষ্ট কিছু প্রস্তাব দেবেন। সেই প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন পেলে আনুষ্ঠানিক প্রজ্ঞাপন জারি হবে।


এ বিষয়ে জানতে চাইলে সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা নাম প্রকাশ করে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। তাঁরা বলছেন, বিষয়টি সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে আসবে। তাই প্রজ্ঞাপন জারি হওয়ার আগে মন্তব্য করার সুযোগ নেই। তবে তাঁরা বলছেন, কঠোর বিধি-নিষেধ নিশ্চিত করতে গেলে সাধারণ ছুটির বিকল্প নেই। প্রথমবার সাধারণ ছুটি দেওয়ার কারণেই করোনা সংক্রমণ সহজে নিয়ন্ত্রণ করা গিয়েছিল। তবে কিছু যৌক্তিক প্রতিষ্ঠান এবং ব্যক্তির যানবাহন চলাচল নিশ্চিত থাকবে।

  • সর্বশেষ - সারাদেশ