ময়মনসিংহ, , ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ অনলাইন সংস্করণ

রমজানে শেষ রাতে ও ইফতারের সময় দোয়া কবুল হয়

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

রমজানে শেষ রাতে ও ইফতারের সময় দোয়া কবুল হয়

হিজরিবর্ষের নবম মাস রমজান। এ মাস ঈমানদারদের জন্য অনেক বড় নিয়ামত। এটি দয়াময় আল্লাহর করুণা লাভের সুবর্ণ সুযোগ, নৈকট্য লাভের উত্তম সময়, পরকালীন পাথেয় অর্জনের উত্কৃষ্ট মৌসুম।

পাঠকদের জন্য নিম্নে রমজানের বিশেষ আমলগুলো তুলে ধরা হলো-

তারাবির নামাজ

রমজানের অন্যতম প্রধান গুরুত্বপূর্ণ আমল হলো- তারাবি। তারাবির নামাজ জামাতের সঙ্গে আদায় করা সুন্নত। পারিবারিকভাবেও তারাবির নামাজের জামাত করা যেতে পারে। বিধি-নিষেধের কারণে যদি সম্ভব না হয়, তবে একাকী তো অবশ্যই পড়া যায়। কেননা একাধিক সাহাবি তারাবির নামাজ একাকী আদায় করেছেন বলেও প্রমাণিত।

তাহাজ্জুদ আদায়

তাহাজ্জুদ সারা বছরের আমল। নফল নামাজগুলোর মধ্যে তাহাজ্জুদ নামাজের প্রশংসাই কোরআনে করা হয়েছে। রমজানে তাহাজ্জুদ নামাজ আদায় অত্যন্ত সহজ। সাহরির আগে বা পরে দুই-দুই রাকাত করে তাহাজ্জুদ আদায় করা যেতে পারে।

দোয়া ও প্রার্থনা

রাসুলুল্লাহ (সা.) রমজান মাসে দোয়ার প্রতি বিশেষ গুরুত্বারোপ করতেন। রমজানের শেষ রাতে ও ইফতারের সময় দোয়া কবুল হয়। সুতরাং এ সময় নিজের, পরিবার, দেশ ও সব মানুষের নিরাপত্তা ও সুরক্ষার জন্য বেশি বেশি দোয়া করা প্রয়োজন।

তাওবা ও মাগফিরাত

রমজানের একটি বিশেষ আমল তাওবা। রমজানের রোজা বান্দাকে গুনাহমুক্ত করে। তাই বেশি বেশি তাওবা করতে হবে।

দান ও বদান্যতা

আল্লাহর রাসুল (সা.) রমজানে বেশি বেশি দান করতেন। সুতরাং মুমিন অন্য মাসের তুলনায় রমজানে বেশি দান করবে।

  • সর্বশেষ - অতিথি কলাম