, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮ অনলাইন সংস্করণ

সোনালী লাইফের আইপিও : যেভাবে হলো শেয়ার বণ্টন

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

সোনালী লাইফের আইপিও : যেভাবে হলো শেয়ার বণ্টন

সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) ১০ হাজার টাকার আবেদন করা সাধারণ বিনিয়োগকারীরা ১৭টি শেয়ার বরাদ্দ পেয়েছেন। একইভাবে প্রবাসী (এনআরবি) বিনিয়োগকারীরা ৩৩টি এবং ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীরা ২২টি করে শেয়ার পেয়েছেন।

র্যানডম পদ্ধতিতে বিনিয়োগকারীদের এভাবে শেয়ার বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে কিছু সাধারণ বিনিয়োগকারী ১৮টি এবং কিছু প্রবাসী বিনিয়োগকারী ৩৪টি করে শেয়ার পেয়েছেন।

সোমবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) কার্যালয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার বরাদ্দ দেয়া হয়।

নতুন নিয়মের আইপিওতে সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার প্রথম বরাদ্দ দেয়া হলো। প্রো-রাটার এই প্রক্রিয়ায় যেসব দেশীয় সাধারণ বিনিয়োগকারী আইপিওতে ১০ হাজার টাকার আবেদন করেছে তারাই ১৭টি করে শেয়ার বরাদ্দ পেয়েছেন।

এছাড়া যারা ২০ হাজার টাকা আবেদন করেছে তাদের ৩৪টি শেয়ার, যারা ৩০ হাজার টাকার আবেদন করেছে তাদের ৫১টি, যারা ৪০ হাজার টাকার আবেদন করেছে তাদের ৬৮টি এবং যারা ৫০ হাজার টাকার আবেদন করেছে তাদের ৮৫টি শেয়ার দেয়া হয়েছে।

একইভাবে যেসব প্রবাসী বিনিয়োগকারী আইপিওতে ১০ হাজার টাকার আবেদন করেছে তারাই ৩৩টি করে শেয়ার বরাদ্দ পেয়েছেন।

এছাড়া যারা ২০ হাজার টাকা আবেদন করেছে তাদের ৬৬টি শেয়ার, যারা ৩০ হাজার টাকার আবেদন করেছে তাদের ৯৯টি, যারা ৪০ হাজার টাকার আবেদন করেছে তাদের ১৩২টি এবং যারা ৫০ হাজার টাকার আবেদন করেছে তাদের ১৬৫টি শেয়ার দেয়া হয়েছে।

অপরদিকে যেসব ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারী আইপিওতে ১০ হাজার টাকার আবেদন করেছে তারাই ২২টি করে শেয়ার বরাদ্দ পেয়েছেন।

এছাড়া যারা ২০ হাজার টাকার আবেদন করেছে তাদের ৪৪টি শেয়ার, যারা ৩০ হাজার টাকার আবেদন করেছে তাদের ৬৬টি, যারা ৪০ হাজার টাকার আবেদন করেছে তাদের ৮৮টি এবং যারা ৫০ হাজার টাকার আবেদন করেছে তাদের ১১০টি শেয়ার দেয়া হয়েছে।

এর আগে সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের আইপিও’র জন্য গত ৩০ মে থেকে ৩ জুন পর্যন্ত আবেদন গ্রহণ করা হয়। কোম্পানিটি শেয়ারবাজারে ১ কোটি ৯০ লাখ সাধারণ শেয়ার ছেড়ে ১৯ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে। এজন্য প্রতিটি শেয়ারের অভিহিত মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ টাকা।

আইপিওর মাধ্যমে সংগৃহীত অর্থ দিয়ে কোম্পানি সরকারি ট্রেজারি বন্ড, ফিক্সড ডিপোজিট, শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ ও আইপিও খরচ খাতে ব্যয় করবে।

কোম্পানির ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হিসাব বছরে নিরীক্ষিত আর্থিক বিবরণী অনুযায়ী নিট সম্পদমূল্য ২৫.৪৭ টাকা (কোম্পানিটি কোনো সম্পদ পুনঃমূল্যায়ন করেনি) এবং লাইফ ইন্স্যুরেন্স ফান্ডের পরিমাণ ৯৫ কোটি ৩৩ লাখ টাকা।

কোম্পানির ইস্যু ব্যবস্থাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট ও অগ্রণী ইক্যুইটি অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট।

নতুন নিয়মে প্রথমবারের মতো সোনালী লাইফের আইপিও আবেদন করেছে বিনিয়োগকারীরা। নতুন নিয়মানুযায়ী আইপিও আবেদন করতে হলে যোগ্যতা হিসেবে বিনিয়োগকারীদের সেকেন্ডারি মার্কেটে ন্যূনতম ২০ হাজার টাকার বিনিয়োগ থাকতে হবে। একই সঙ্গে যারা আইপিওতে আবেদন করবে তাদের প্রত্যেককে শেয়ার বরাদ্দ দেয়া হবে।

  • সর্বশেষ - অর্থ-বাণিজ্য