, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ অনলাইন সংস্করণ

দ্বিতীয় রমজানে রাজধানীতে তীব্র যানজট, চরম ভোগান্তি

  নিজস্ব প্রতিবেদক

  প্রকাশ : 

দ্বিতীয় রমজানে রাজধানীতে তীব্র যানজট, চরম ভোগান্তি

যানজটের কারণে দ্বিতীয় রমজানের শেষ বিকালে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন ঘরে ফেরা মানুষ। রাস্তায় গাড়ির সারিতে দীর্ঘ যানজট দেখে অনেকেই মেট্রোতে করে যাওয়ার চেষ্টা করেও ঠাঁই পাননি। এতে অতিষ্ঠ হয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন কেউ কেউ। সকাল ৯টা থেকে বিকাল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত অফিস শেষে বাড়ির পথে ছুটেন কর্মজীবীরা।

পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে এক টেবিলে বসে ইফতারই মূল লক্ষ্য সবার। এ কারণে অফিস ছুটির পর ঘরমুখো মানুষদের চলাচলে মুখর হয়ে ওঠে রাজধানীর সড়কগুলো। এতে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।

বুধবার দ্বিতীয় রমজানে বিকাল সাড়ে ৩টার পর থেকে সড়কগুলোতে বাড়ে যানবাহনের চাপ। রাজধানীর সড়কগুলো অনেক ব্যস্ত হয়ে পড়ে। সড়কগুলোতে যাতে কোথাও যানবাহনের বিশৃঙ্খলা বা যানজটের সৃষ্টি না হয় সে জন্য বিশেষ ব্যবস্থায় কাজ করছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক বিভাগ। রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে যানবাহনের প্রচণ্ড চাপ এবং তীব্র যানজট সৃষ্টি হলেও বেশ কিছু স্থানে সড়কগুলো একেবারেই স্বাভাবিক।  

রাজধানীর মতিঝিল, আরামবাগ, পুরান পল্টন, নয়া পল্টন, কাকরাইল, গুলিস্তান, প্রেসক্লাব, রমনা, মগবাজার, মালিবাগ, রামপুরা, বাড্ডার সড়কগুলোতে যানজটের ভোগান্তিতে পড়েন নগরবাসী।  

অপরদিকে, সাতরাস্তা, মহাখালী, পর্যন্ত সড়কে বিভিন্ন স্থানে যানবাহনের প্রচণ্ড চাপ বাড়ে। এদিকে, রাজধানীর যেসব এলাকায় মেট্রোরেল ও এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে রয়েছে, সেবা এলাকায় যানজট বা যানবাহনের চাপ অনেক কম থাকতে দেখা গেছে।  

উত্তরা দিয়াবাড়ি থেকে মিরপুর, পল্লবী, আগারগাঁও, হয়ে কারওয়ান বাজার, শাহবাগ প্রেসক্লাব পর্যন্ত সড়কে যানবাহনের চাপ থাকলেও যানজট নেই।  

অন্যদিকে, উত্তরা, বিমানবন্দর, বনানী, মহাখালী, বিজয় সরণি, ফার্মগেটের এলাকায় এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে থাকায় এসব এলাকায় খুব বেশি যানজট দেখা যাচ্ছে না। তবে এসব এলাকায় সড়কে ট্রাফিক সিগন্যাল রয়েছে৷

  • সর্বশেষ - মহানগর