, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ অনলাইন সংস্করণ

প্রথম দিনই ময়মনসিংহ নগরী কাঁপালেন ‘ঘড়ি’ প্রতীকের প্রার্থী ইকরামুল হক টিটু

  শাহ মোহাম্মদ রনি

  প্রকাশ : 

প্রথম দিনই ময়মনসিংহ নগরী কাঁপালেন ‘ঘড়ি’ প্রতীকের প্রার্থী ইকরামুল হক টিটু

আগামী ৯ মার্চ ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। শুক্রবার দিনব্যাপী প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণায় নেমেছেন মেয়র, সংরক্ষিত আসনে নারী ও সাধারণ আসনে পুরুষ কাউন্সিলর প্রার্থীরা। প্রচারণার প্রথম দিনই নগরী কাঁপালেন ‘টেবিল ঘড়ি’ প্রতীকের হেভিওয়েট প্রার্থী ইকরামুল হক টিটু। প্রতীক নিয়ে অডিটোরিয়াম থেকে বের হতেই সর্বস্তরের হাজার হাজার সমর্থক তাকে ঘিরে ধরেন। নারী সমর্থকদের উপস্থিতি ছিলো চোখে পড়ার মতো। বিপুল সংখ্যক সমর্থকের উপস্থিতি টাউন হল এলাকা মুখরিত হয়ে ওঠে। উপস্থিত নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের উদ্দেশ্যে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রেখে টিটু গণসংযোগ শুরু করেন। জুমার নামাজের বিরতির পর আবারো শুরু হয় গণসংযোগ। সমর্থকরা মুহুর্তেই নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডে খণ্ড খণ্ড মিছিল ও গণসংযোগে নামেন। শুক্রবার রাতে এ খবর লেখার সময় পর্যন্ত টিটুর সমর্থকরা মাঠে ছিলেন। এরই মধ্যে পোস্টারে ছেয়ে গেছে পুরো নগরী। সূত্র মতে, সদ্য সাবেক মেয়র ও নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী ইকরামুল হক টিটুর মূলমন্ত্র নগরীতে দৃশ্যমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ড ও করোনা মহামারীতে নগরবাসীর পাশে দাঁড়ানো। অন্যদিকে আগামী নির্বাচনে ভোটাররা প্রাধান্য দেবেন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড, নাগরিক সেবা নিশ্চিত, গ্রহণযোগ্যতা, বলিষ্ঠ ভূমিকা ও বিচক্ষণতা বিবেচনা করে। আওয়ামী লীগ সরকারের দীর্ঘ ১৫ বছর নগরীকে ঢেলে সাজানোর বিষয়টি টিটুর জন্য প্লাস পয়েন্ট। যা আগের ৩৭ বছরকে ছাড়িয়ে গেছে।
এদিকে ‘টেবিল ঘড়ি’ প্রতীকের বিজয় নিশ্চিত করতে মাঠে নেমেছেন আগে থেকেই প্রস্তুত থাকা আওয়ামী লীগ, সহযোগী ও অঙ্গসংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতা-কর্মী ও সমর্থক, ব্যবসায়ী, সামাজিক-সাংস্কৃতিক, সুশীল সমাজ ও বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার বিশাল সমর্থক গোষ্ঠী। ইকরামুল হক টিটুকে ঘিরে আওয়ামী লীগ, সহযোগী ও অঙ্গসংগঠনের অধিকাংশ নেতা-কর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে শুরু হয়েছে ব্যাপক তোড়জোড়। তাকে বিবেচনা করা হচ্ছে জনপ্রিয় প্রার্থী হিসেবে। সম্মানজনক ভোট ব্যবধানে ‘টেবিল ঘড়ি’ প্রতীক নিয়ে টিটু বিজয়ী হবেন বলে পর্যবেক্ষক মহলের ধারণা। বিশ্লেষকদের মতে, ক্লিন ইমেজের টিটু ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাস্তবায়ন করে লাখ লাখ মানুষকে আন্দোলিত করেছেন। তিনি বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেন। অন্যদের মধ্যে ঘোড়া প্রতীক নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব এহতেশামূল আলম, হাতি প্রতীক নিয়ে শহর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট সাদেক খান মিল্কী টজু, লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম স্বপন মন্ডল ও হরিণ প্রতীক নিয়ে কৃষক লীগের সাবেক নেতা কৃষিবিদ ড. মো. রেজাউল হক মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।                                
ইকরামুল হক টিটু ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনকে ‘স্মার্ট সিটি’ হিসেবে গড়ার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। তিনি জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত নগরবাসীর সেবা করতে চান। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় জনগণের কল্যাণে নিজেকে নিবেদিত করেছেন। শেষ দিন পর্যন্ত তা অব্যাহত রাখতে চান। টিটু নীতি ও আদর্শের প্রশ্নে আপসহীন। আলোচনা-পর্যালোচনা ও নির্বাচনী জল্পনা-কল্পনায় তাকে হেভিওয়েট প্রার্থী হিসেবে ধরে নিয়ে চলছে সরগরম প্রচারণা। তার ব্যক্তি ইমেজ নিয়েই নির্বাচনী প্রচারণা দানা বেঁধে উঠেছে। দলমতের উর্ধ্বে সাধারণ মানুষের কাছে টিটুর ব্যাপক সমর্থন রয়েছে। সততা, দক্ষতা, বলিষ্ঠ নেতৃত্ব, দায়িত্বশীলতা ও অভিজ্ঞতা ছাড়াও উন্নয়নের ক্ষেত্রে তিনি প্রতিশ্রুতিশীল। নির্লোভ ও পরোপকারী টিটুর বিজয়ে সর্বস্তরের মানুষ একজোট। অন্যদিকে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকেই জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ, জেলা ও মহানগর যুবলীগ, জেলা ও মহানগর কৃষক লীগ, জেলা ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ, জেলা ও মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগ, জেলা ও মহানগর যুব মহিলা লীগ, জেলা ছাত্রলীগ, মহানগর ছাত্রলীগ, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগ, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ, আনন্দমোহন কলেজ ছাত্রলীগ, ময়মনসিংহ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ ছাত্রলীগ, জেলা ও মহানগর মৎস্যজীবী লীগ, জেলা ও মহানগর তাঁতী লীগসহ বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের অধিকাংশ নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা জনপ্রিয় প্রার্থী ইকরামুল হক টিটুর পক্ষে গণসংযোগ ও প্রচারণা চালাচ্ছেন।
বিশ্লেষকরা জানান, ইকরামুল হক টিটু একজন স্বাপ্নিক মানুষ। সেবার মানসিকতা ও নতুন নতুন ধারণা বাস্তবায়ন করে বদলে দিয়েছেন ময়মনসিংহ নগরীর দৃশ্যপট। সিটি কর্পোরেশনের মেয়রদের মধ্যে যেক’জন আলোচিত টিটু তাদের একজন। দৃশ্যমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ড, সৌন্দর্যবর্ধন প্রকল্প, ক্লিন ইমেজ, বিচক্ষণতা ও সাংগঠনিক দক্ষতার কারণে তিনি সকলের নজর কেড়েছেন। সদ্য সাবেক মেয়র টিটু সম্পর্কে নাগরিক আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার নুরুল আমিন কালাম দৈনিক জাগ্রত বাংলা’কে বলেন, নিজের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে টিটু নগরবাসীর পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। সকলের প্রিয় এই মানুষ জীবন বাজি রেখে নাগরিক সুরক্ষার জন্য কাজ করেছেন। তিনি ২ বার করোনা আক্রান্ত হন। সুস্থ হয়ে করোনা সংকট নিরসনে আবারো মাঠে নামেন টিটু। সূত্র মতে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের নাগরিকদের প্রতি আন্তরিক। ময়মনসিংহবাসীকে বিভাগ ও সিটি কর্পোরেশন উপহার দিয়েছেন। মসিকের উন্নয়নের জন্য একাধিক প্রকল্প দেন। সড়ক ও ড্রেনেজ নেটওয়ার্ক উন্নয়নের জন্য ১৫৭৫ কোটি টাকার প্রকল্প দিয়েছেন। মসিক আরেক ধাপ এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছে। প্রকল্পগুলো বাস্তবায়িত হলে মসিকের সড়ক ও ড্রেনেজ নেটওয়ার্ক সক্ষমতার ব্যাপক পরিবর্তন ঘটবে। ‘স্মার্ট সিটি’ বিনির্মাণে প্রকল্পগুলো মাইলফলক হয়ে থাকবে।

  • সর্বশেষ - আলোচিত খবর