, ২১ মাঘ ১৪২৯ অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন এলাকা ডেঙ্গুমুক্ত রাখতে মশক নিধনে ১৪ দিনের বিশেষ কর্মসূচি

  শাহ মোহাম্মদ রনি

  প্রকাশ : 

ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন এলাকা ডেঙ্গুমুক্ত রাখতে মশক নিধনে ১৪ দিনের বিশেষ কর্মসূচি

করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলার পর ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন এলাকায় নাগরিকদের ডেঙ্গুমুক্ত রাখতে মশক নিধনের জন্য ১৪ দিনের বিশেষ কর্মসূচি শুরু করা হয়েছে। গতকাল ১১ অক্টোবর শুরু হওয়া বিশেষ কর্মসূচি চলবে আগামী ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত। মঙ্গলবার দুপুর ১২ টায় মসিকের কালিবাড়ি আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে মশক নিধন কার্যক্রম উদ্বোধন করেন জনপ্রিয় মেয়র মোঃ ইকরামুল হক টিটু। কর্মসূচির আওতায় মসিকের ৩৩ ওয়ার্ডের ১৪০ হটস্পটকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে নগরব্যাপী এডাল্টিসাইড ও লার্ভিসাইড প্রয়োগ করা হচ্ছে।
নাগরিকদের সুরক্ষা দিতে মেয়র মোঃ ইকরামুল হক টিটু’র কঠোর নির্দেশনা বাস্তবায়নে একদল চৌকস কর্মকর্তা-কর্মচারীকে বিশেষ কর্মসূচিতে সম্পৃক্ত করা হয়েছে। ডেঙ্গু বিস্তার প্রতিরোধে ব্যবস্থা নেওয়ায় আক্রান্তের পরিমাণ অনেকাংশেই কম থাকবে বলে মত প্রকাশ করেছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। তারা সঠিকভাবে বিশেষ কর্মসূচি পরিচালনার পরামর্শ দিয়েছেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, ডেঙ্গু প্রতিরোধে নগরব্যাপী ব্যবস্থা নেওয়ার কারণে হুমকির হাত থেকে রক্ষা পাবেন নগরবাসী। এদিকে ডেঙ্গু প্রতিরোধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ায় স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন নগরবাসী। নগরবাসীকে সচেতন করতে বিতরণ করা হচ্ছে প্রচারপত্র। দিনব্যাপী মাইকিং করা হচ্ছে ওয়ার্ডগুলোয়। নাগরিকদের মতে, এটি ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের বিশেষ অবদান।


সূত্র জানায়, মেয়র মোঃ ইকরামুল হক টিটু নাগরিকদের ডেঙ্গুমুক্ত রাখতে সিটি কর্পোরেশন এলাকায় মশক নিধনে বিশেষ কর্মসূচিত চালানোর পরিকল্পনা নেন। এডিস মশার প্রজনন ও বিস্তার রোধে কঠোর নির্দেশনা দিয়ে সংশ্লিষ্টদের দায়িত্ব দিয়েছেন। প্যানেল মেয়র, কাউন্সিলর ও কর্মকর্তাদের মনিটরিংয়ের পাশাপাশি মেয়র নিজেও প্রতিদিনের কার্যক্রম মনিটরিং করছেন। মশক নিধন কার্যক্রমের দায়িত্বপ্রাপ্ত খাদ্য ও স্যানিটেশন কর্মকর্তা দীপক মজুমদার বুধবার দৈনিক জাগ্রত বাংলা’কে জানান, মেয়র মহোদয়ের কঠোর নির্দেশনায় নগরীতে মশক নিধনে বিশেষ কর্মসূচি চালানো হচ্ছে। নাগরিক সুরক্ষা নিশ্চিত করতে আমরা গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছি। তিনি বলেন, যেকোনো স্থানে ৩ দিনের বেশি জমে থাকা পানিতে এডিস মশার বিস্তার বাড়ে। বিস্তার রোধে সবাইকে সচেতন থাকতে হবে। তিনি আরও বলেন, এডিস মশার লার্ভা জমিয়ে রাখার বিষয়ে ইতিমধ্যে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালানো হয়েছে। এর পরও নির্মাণাধীন কোনো ভবনের জমা পানিতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গেলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জরিমানা করা হবে।
ডেঙ্গু সম্পর্কে মেয়র মোঃ ইকরামুল হক টিটু বলেন, যেকোনো পরিস্থিতিতে নাগরিকদের সুরক্ষা দিতে আমরা বদ্ধপরিকর। বর্তমান সময়ে এডিস মশার কামড়ে ডেঙ্গু জ্বরের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। আমাদের আশে-পাশে জমে থাকা পানিতে এডিস মশা বংশ বিস্তার করে। এ বিষয়ে সকলকে সচেতন থাকতে হবে। তিনি বলেন, এর আগে কখনও এডিস মশার কামড়ে ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ডেঙ্গু জ্বরের প্রাদুর্ভাব ঘটেনি। মশক নিধন কার্যক্রম এবং সকলের সচেতনতায় এবারও ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন এলাকা ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব থেকে মুক্ত থাকবে।



  • সর্বশেষ - আলোচিত খবর